মেডিকেলের মেধা তালিকায় এক উপজেলার ২৩ জন

লোহাগাড়া
  © প্রতীকি ছবি

২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখে দেশের বিভিন্ন সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেলেন চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার ২৩ জন মেধাবী শিক্ষার্থী। রবিবার (৪ এপ্রিল) সন্ধ্যায় প্রকাশিত ফলাফল থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

এসব শিক্ষার্থীর তথ্য সংগ্রহ করেছেন উপজেলার শিক্ষিত তারুণ্যভিত্তিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘লোহাগাড়া এলিট সোসাইটি’র প্রতিষ্ঠাতা ও কেন্দ্রীয় সভাপতি ফয়সাল সালেহ আল মেহেদী। বুধবার (৭ এপ্রিল) তিনি দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তথ্য মতে, এবার মোট ১ লাখ ২২ হাজার ৮৭৪ জন শিক্ষার্থী মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে আবেদন করেছিলেন। তাদের মধ্যে ১ লাখ ১৬ হাজার ৭৯২ জন গত ২ এপ্রিল পরীক্ষায় অংশ নেন।

এ পরীক্ষায় প্রাথমিকভাবে যোগ্য বিবেচিত হয়েছেন ৪৮ হাজার ৯৭৫ জন। আসন সাপেক্ষে তাদের মধ্যে প্রথম ৪ হাজার ৩৫০ জন পরীক্ষার্থীকে ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে সরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তির জন্য নির্বাচিত করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

লোহাগাড়া এলিট সোসাইটির তথ্য মতে, ঢাকা মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন ইহতিশাম সামি, জোবায়দা আক্তার শিরিন, জাওয়াদ মাহমুদ জামী। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে সাজ্জাদ হোসাইন ইমন, আসিফ বিন হাশেম, মুহাম্মদ সাইমুন ও মুহাম্মদ আসিফ হাসান। এছাড়াও সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজে মিফতাহুল জান্নাত শেফা। রাজশাহী মেডিকেল কলেজে অন্তরা মাহের শিজা, বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজে মুজাহিদুল ইসলাম, দিনাজপুর মেডিকেল কলেজে রাকিব রাশেদ, মুহাম্মদ আরকানুল ইসলাম। শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজে জহিরুল ইসলাম, সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজে জিয়া উদ্দিন শাকিল, গোপালগঞ্জের শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজে সাদিয়া সুলতানা। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে আবদুল মুমিন সোহাগ, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে জান্নাতুল নাঈমা ও তাহিয়া জান্নাত। চাঁদপুর মেডিকেল কলেজে আলী আহসান মো. মুজাহিদ। আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজে মুহাম্মদ আরমান উদ্দিন। কিশোরগঞ্জ মেডিকেল কলেজে নানজিবা নাহিয়ান নাহিন ও রংপুর মেডিকেল কলেজে তাছরিন আক্তার কলি।

এ বিষয়ে লোহাগাড়ার বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর জালাল আহমদ বলেন, এই সাফল্যে আমরা খুবই গর্ববোধ করছি। লোহাগাড়া উপজেলা থেকে ২৩ মেধাবী শিক্ষার্থী দেশের বিভিন্ন সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তি সুযোগ পাওয়ায় আমরা আনন্দিত। ভবিষ্যতে তারা যোগ্য চিকিৎসক হয়ে মানবতার সেবায় যেন নিজেকে উৎসর্গ করতে পারে এই প্রত্যশা আমাদের।

লোহাগাড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার নুরুল ইসলামের মুঠোফোন সংযোগ না পাওয়ায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ