জাবিতে বিক্ষোভ: জিপিএ কখনও মেধা যাচাইয়ের মানদণ্ড হতে পারে না

জাবি
প্রগতিশীল ছাত্রজোট ও জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোট শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ  © টিডিসি ছবি

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত অনিশ্চয়তা নিরসন, ফর্মের মূল্য অনধিক ৩০০ টাকা ও সিলেকশন পদ্ধতি বাতিলের দাবিতে প্রগতিশীল ছাত্র জোট ও জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করেছে। রবিবার (১ মে) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের চৌরঙ্গী মোড়ে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীর মানববন্ধন করেন।

বক্তারা বলেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় তার পূর্বের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে বলে আমরা পত্রিকা মারফত শুনতে পেরেছি। এই মানবিক বিবেচনার জন্য প্রশাসনকে আমরা সাধুবাদ জানাই। তবে এখনও কোন বিজ্ঞপ্তি আসেনি। চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানা যাবে ১৮ ই মে। কিন্তু এই অনিশ্চয়তার কারণে শিক্ষার্থীদের মানসিক চাপ থাকবে। আমরা দাবি জানাই অতি দ্রুত নতুন সিদ্ধান্ত বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হোক। লকডাউনে শ্রমজীবী মানুষের জীবনের দুর্ভোগ চরমে উঠেছে। এর মধ্যে ১১০০ টাকা প্রতি ইউনিট তো দূরের কথা, আগের মূল্য দিয়ে ফর্ম তোলাই অসম্ভব হয়ে পড়বে। আমরা চাই বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশদ্বার শুধু ধনীদের জন্য নয়, সকলের জন্যই উন্মুক্ত থাকুক। করোনা মহামারীকে আমলে নিয়ে আমরা দাবি করতে চাই, ফর্মের মূল্য অনধিক ৩০০ টাকা করা হোক।

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, জিপিএ কখনও মেধা যাচাইয়ের মানদণ্ড হতে পারে না। তাই আমরা মোট জিপিএ বা বিষয়প্রতি জিপিএ এর যে নতুন পদ্ধতি, তা বাতিল চাই এবং পূর্বের পদ্ধতির পুনর্বহাল চাই।

মানববন্ধনে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক তাসবীবুল গণি নিলয় এর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল রনি, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখার আহ্বায়ক শোভন রহমান, প্রত্নতত্ত্ব বুভাগের শিক্ষার্থী সুদীপ্ত দে সহ ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের মধ্যে শাহারিয়ার মুন্না, আল আমিন ইসলাম, নূর সিয়াম মুগ্ধ ও ইঞ্জামুল মোর্শেদ।


মন্তব্য