রাবির ক্রপসায়েন্সে সভাপতি নিয়োগে জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘনের রিট খারিজ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও লোগো
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও লোগো  © ফাইল ফটো

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ক্রপসায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগে জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘনে সভাপতি নিয়োগ নিয়ে করা একই বিভাগের অধ্যাপক ড. আলী আসগরের রিট খারিজ করে দিয়েছেন আদালত। এতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে ভার্চুয়াল আদালতে দেওয়া নিয়োগ স্থগিত রাখার নির্দেশ কার্যকর থাকছে না।

বৃহস্পতিবার( ২৪ সেপ্টেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়টির প্যানেল আইনজীবি ব্যারিস্টার এ বি এম আলতাফ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেন। 

তিনি বলেন, গতকাল রিটটি বিচারপতি জেবিএম হাসান ও মো. খায়রুল আলমের বেঞ্চ রিটটি উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে দেন। বিচারপতিদ্বয় রিট বিষয়ে বলেছেন যে, রাবির আইন অনুযায়ী উপাচার্যের কোন সিদ্ধান্তে সংক্ষুদ্ধ হলে আচার্যের কাছে আপিল করতে হয়। যেহেতু রিটকারি আচার্য বরাবর আপিল করেছেন এবং রিটের বিষয়টি আপিলাধীন আছে সেহেতু রিটটি প্রিম্যাচিউর।

এসময় রিট আবেদনকারীর পক্ষে আইনজীবি আমিনুল ইসলাম হেলাল উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে গত ৭ জুলাই রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে ১৪ জুলাই হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের ভার্চুয়াল কোর্টে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে এ নিয়োগ স্থগিত রাখতে নির্দেশ দেয়া হয়।

জানা যায়, অধ্যাপক সাইফুল ইসলামকে ২০১৭ সালের ৯ মে তিন বছরের জন্য ক্রপসায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের সভাপতি হিসেবে নিয়োগ দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। যার মেয়াদ শেষ হয় চলতি বছরের ৮ মে। জ্যেষ্ঠতার নিয়ম অনুযায়ী অধ্যাপক সাইফুল ইসলামের পর অধ্যাপক মু. আলী আসগর সভাপতি হওয়ার কথা।

কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন অধ্যাপক আলী আসগরকে বাদ দিয়ে অপেক্ষাকৃত জুনিয়র শিক্ষক আবুল কালাম আজাদকে সভাপতি হিসেবে নিয়োগ দেয়। যা বিশ্ববিদ্যালয় আইন ১৯৭৩ এর ২৯ ধারার (৩) (১) জ্যেষ্ঠতার নিয়ম লঙ্ঘন করে বলে অভিযোগ করেন অধ্যাপক আলী আসগর। পরে জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে নিয়োগ স্থগিত চেয়ে ভার্চুয়াল কোর্টে রিট পিটিশন করেন বিভাগের জ্যেষ্ঠ শিক্ষক অধ্যাপক মু. আলী আসগর।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ