ঘুম থেকে ৮টার আগে না উঠলে শাস্তি দেবে চীনের বিশ্ববিদ্যালয়

চীনের বিশ্ববিদ্যালয় আইন
চীনের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী  © সংগৃহীত

শিক্ষার্থীদের জন্য ঘুম থেকে ওঠার সময়ও বেঁধে দিয়েছে চীনের বিশ্ববিদ্যালয়। বেঁধে দেয়া সময়ের পরে ঘুম থেকে উঠলে শিক্ষার্থীদের শাস্তি ভোগ করতে হবে। উইবোর ভিডিওর বরাত দিয়ে এখবর দিয়েছে ডেইলি মেইল।

সাংহাই বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মে বলা হয়েছে, সকাল ৮ টার বেশি সময় ঘুমনো যাবে না। যারা স্নাতক হয়নি, তাদের জন্য এই নীতি নির্ধারণ করা হয়েছে। আর যারা স্নাতকোত্তরের ছাত্র, তারা এক ঘণ্টা বেশি ঘুমানোর সময় পাবেন। হোস্টেলের কেয়ারটেকাররা ঘুরে দেখবেন, কেউ নিয়ম ভাঙছে কিনা। নিয়ম ভাঙলেই শাস্তি।

সাংহাই ইউনিভার্সিটিতে এই নিয়ম জারি করা হয়েছে। সেখানে স্নাতক স্তরে পড়াশোনা করছে অন্তত ২০ হাজার শিক্ষার্থী এবং স্নাতকোত্তরে ১৬ হাজার ৫শ জন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন নিয়ম অনুযায়ী, শিক্ষার্থীদের প্রতিদিন ঠিক সময়ে ঘুম থেকে উঠতে হবে। এছাড়া নিজের বিছানা ছাড়া অন্য কোনো শিক্ষার্থীর বিছানা খালি থাকলেও সেখানে ঘুমনো যাবে না। নতুন জারি করা নিয়ম ভঙ্গ করলে সোস্যাল ক্রেডিট অ্যাকাউন্টের বিহ্যাভিয়ার পয়েন্ট থেকে ১৫ পয়েন্ট কাটা যাবে। আর এভাবে পয়েন্ট কমে গেলে শিক্ষার্থীদের স্কলারশিপ পেতে অসুবিধা হবে।

সাংহাই বিশ্ববিদ্যালয়ের এই নতুন নিয়ম নিয়ে বেশ সমালোচনাও হচ্ছে। চীনের সামাজিক মাধ্যম ওয়েইবো ব্যবহারকারীরা বিভিন্ন পোস্টের মাধ্যমে নিজেদের মতামত ব্যক্ত করেছেন। অনেক শিক্ষার্থী বলছেন, প্রজেক্ট শেষ করতে তাদের রাতে অনেকক্ষণ জেগে থাকতে হয়। ফলে সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠা তাদের জন্য শাস্তি। তারা নতুন নিয়ম নিয়ে রীতিমত আতঙ্কিত।

এক ব্যবহারকারী বলেছেন, আমি এর সঙ্গে একমত নই। একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান উদার এবং সহনশীল হওয়া উচিত। এটি এমন কোনো জায়গা নয় যেখানে এতো ধরনের নিয়ম-কানুন থাকবে। প্রত্যেকের জীবনযাত্রাই আলাদা। তাই সবাইকে এক মানদণ্ডে বিচার করা উচিত নয়।

সকালে দেরি করে ঘুম থেকে উঠায় রয়েছে ক্ষতি। গবেষণা বলছে, সকালে তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে ওঠা ব্যক্তিদের চেয়ে রাতজাগা মানুষের অকাল মৃত্যুর আশঙ্কা ১০ শতাংশ বেশি। দেরি করে ঘুম থেকে ওঠার কারণে বিভিন্ন মানসিক ও শারীরিক জটিলতার শিকার হতে হয়।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ