হাফ ভাড়া দিতে চাওয়ায় ইবি শিক্ষার্থীকে পেটানোর হুমকি

ইবি
বাসটি ক্যাম্পাসের কাছে গেলে শিক্ষার্থীরা আটক করে  © ছবি : সংগৃহীত

খুলনা মহাসড়কে চলাচলরত গড়াই পরিবহনে হাফ ভাড়া দিতে চাওয়ায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) এক শিক্ষার্থীকে রড বের করে পেটানোর হুমকি দিয়েছে কাউন্টার ম্যানেজার। বুধবার (১২ জানুয়ারি) সন্ধ্যা ছয়টার দিকে কুষ্টিয়ার চৌড়হাস মোড়ে এ ঘটনা ঘটে।

পরে সন্ধ্যা সাতটার দিকে গাড়িটি ক্যাম্পাসের সামনে দিয়ে গেলে শিক্ষার্থীরা গাড়িটি আটক করে। এ সময় শিক্ষার্থীরা গাড়ির গ্লাস ভাঙচুর ও চালককে মারধর করে।  

পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরিয়াল বডি পরিস্থিতি শান্ত করে ও আহত চালককে বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

আরও পড়ুনঃ ছাত্রলীগের হল কমিটি দিতে জয়-লেখককে আল্টিমেটাম

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী সাফওয়ান ইসলাম কুষ্টিয়া থেকে ক্যাম্পাসে আসার জন্য চৌড়হাস মোড়ে দাঁড়ায়। এ সময় 'শাহাজাদী পরিবহন' (গাড়ি নং ঢাকা মেট্রো-১১-৫১০৬) নামে গড়াই কোম্পানির এক বাস আসে। এ সময় সাফওয়ান কাউন্টারে টিকেট কাটতে যায়।  

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী হাফ ভাড়া দিতে যায়৷ তখন কাউন্টার ম্যানেজার মোখতার তাকে সম্পূর্ণ ভাড়া দিতে বলে। এতে সাফওয়ান প্রতিবাদ করলে মোখতার তাকে গালিগালাজ করে রড দিয়ে পেটাতে আসে। তখন সাফওয়ান সম্পূর্ণ ভাড়া দিয়ে টিকেট কেটে বাসে উঠে। 

এ ঘটনা তার সহপাঠী ও বন্ধুদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বাসটি ক্যাম্পাস ফটক অতিক্রম করার সময় আটক করেন। এ সময় শিক্ষার্থীরা বাসের দুইটি গ্লাস ভাঙচুর করেন এবং চালককে মারধর করেন বলে জানা গেছে।  শিক্ষার্থীরা প্রক্টরিয়াল বডির কাছে কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ রুটে হাফ ভাড়া নিশ্চিত করতে পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানান।

পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরিয়াল বডি এবং শাপলা ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মামুনুর রহমান ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীকে নিয়ে মেডিক্যাল সেন্টারে যান। সেখানে গাড়ির চালক শরিফুল ইসলামের (৪৫) সঙ্গে দেখা করেন।  

গাড়ি চালক শরিফুল ইসলাম ঘটনা স্বীকার করে বলেন, কাউন্টার ম্যানেজারের সঙ্গে টিকিট কাটতে ঝামেলা হলে আমি ম্যানেজারকে বলি হাফ ভাড়া রেখে দিতে। ছাত্রের পক্ষ নেওয়ায় ম্যানেজার আমাকে পেটাবে বলে হুমকি দেয়। কাউন্টার ম্যানেজাররা আমাদের গাড়ি সংশ্লিষ্ট কেউ না।  
পরে অধ্যাপক ড .মামুনুর রহমান, সহকারী প্রক্টর শফিকুল ইসলাম, মুর্শিদ আলম চালক-শিক্ষার্থীর সাথে কথা বলেন। কথা বলা শেষে ঘটনাটি ও হাফ ভাড়ার বিষয়টি নিয়ে মালিক সমিতির সঙ্গে বসার কথা জানান এবং আটক বাসকে ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ দেন।


মন্তব্য

x