শত শত মানুষের সামনেই যুবকের আত্মহত্যা, ছিল পুলিশ-ফায়ার সার্ভিসও

যুবক
যুবকের আত্মহত্যা  © সংগৃহিত

এক মাঝ বয়সী যুবককে নির্মাণাধীন ভবনের সাথে লাগানো বাঁশের সাটারিংয়ে ধরে ৬ষ্ঠতলা থেকে আত্মহত্যার চেষ্টা করতে দেখে স্থানীয়রা। এসময় ৯৯৯- নম্বরে কল করে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয় স্থানীয়রা। পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ওই যুবককে ডেকে ও বুঝিয়ে নিচে নামানোর চেষ্টা করে। এসময় ওই যুবক ৬ তলা থেকে ৫ তলায় বাঁশ বেয়ে নেমে আসে। হঠাৎ ৫ তলায় বাঁশ ছেড়ে দিয়ে নিচে পড়ে যায়। এসময় ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দ্রুত উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সোমবার (৩ মে) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বগুড়া শহরের বড়গোলা এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। পুলিশ, ফায়ার সার্ভিসের কর্মী ও শত শত মানুষ উপস্থিত থাকলেও কেউ কিছুই করতে পারেনি।

নিহত যুবকের নাম টমাস (৩৮)। সে বগুড়া পৌর এলাকার চক সুত্রাপুর নামাজগড় লেন এলাকার মৃত হাফিজুর রহমানের ছেলে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বগুড়া সদর থানার এসআই জহুরুল ইসলাম জানান, আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হই। এরপর টমাসকে বাঁচানোর চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তিনি ৫ তলা থেকে হাত ছেড়ে দিয়ে নিচে পড়ে যান। তবে কি কারণে আত্মহত্যা করেছেন তা জানা যায়নি।

বগুড়া সদর থানার ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, আত্মহত্যাকারী যুবক টমাস নেশাগ্রস্থ ছিল বলে জানা গেছে।


মন্তব্য