করোনার সহায়তার নামে ছাত্রীকে ধর্ষণ, ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা

ছাত্রীকে ধর্ষণ
ইউপি সদস্য ননী গোপাল বিশ্বাস  © সংগৃহীত

বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলায় ননী গোপাল বিশ্বাস (৪৫) নামের এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। ননী গোপাল বিশ্বাস চিতলমারী উপজেলার চরবানিয়ারী ইউনিয়নের পাঁচপাড়া গ্রামের রণজিৎ বিশ্বাসের ছেলে।

করোনাকালীন সরকারি সহায়তা দেওয়ার নাম করে বাড়ি গিয়ে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়েছে মর্মে থানায় মামলা হয়েছে। অভিযুক্ত ইউপি সদস্যকে গ্রেফতার করতে অভিযান শুরু করেছে পুলিশ। ননী গোপাল উপজেলার চরবানিয়ারী ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার)। 

চিতলমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মো. ইকরাম হোসেন বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে ধর্ষণের আলামত জব্দ করেছে পুলিশ। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য স্কুলছাত্রীকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ননী গোপাল বিশ্বাসকে গ্রেফতার করতে অভিযান শুরু হয়েছে।

স্কুলছাত্রীর বাবার অভিযোগ, রবিবার (২ মে) সকালে বাড়িতে একা পেয়ে তার মেয়েকে ধর্ষণ করেন ইউপি সদস্য ননী গোপাল বিশ্বাস।

তিনি বলেন, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ইউপি সদস্য ননী গোপাল বিশ্বাস আমাদের বাড়িতে এসে করোনাকালীন সরকারি সহায়তা দেওয়ার কথা বলে জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি ও মোবাইল নম্বর চান। এগুলো দিলে তিনি নিয়ে চলে যান। 

“এরপর আমি ও আমার স্ত্রী ব্যবসার কাজে চিতলমারী বাজারে যাই। ঘণ্টাখানেক পর বাড়ি ফিরে আমার স্ত্রী দেখে ঘরের আড়ায় ওড়না পেঁচিয়ে আমার মেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালাচ্ছে। তখন তাকে জিজ্ঞাসা করলে জানায়, আমরা বাড়িতে না থাকার সুযোগে ননী গোপাল বিশ্বাস তাকে ধর্ষণ করেছে। আমি ধর্ষকের বিচার চাই।”


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ