ঢাবি অধ্যাপককে চাকরিচ্যুতি কেন অবৈধ হবে না, জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট

ঢাবি
অধ্যাপক ড. মোর্শেদ হাসান খান  © ফাইল ফটো

পত্রিকায় কলাম লেখার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর অবমাননা ও ইতিহাস বিকৃতির ঘটনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মোর্শেদ হাসান খানকে চাকরি থেকে অপসারণের আদেশ কেন অবৈধ হবে না তা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে তাকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তাও জানতে চেয়েছেন আদালত।

ওই অধ্যাপকের করা এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে আজ মঙ্গলবার (৮ জুন) বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রুল জারি করেন। আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া।  
 
তিনি জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মোর্শেদ হাসান খানকে চাকরি থেকে অপসারণ করে গত বছরের ৬ অক্টোবর চিঠি দেন। ওই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে চ্যান্সেললের কাছে ১১ অক্টোবর আপিল করা হয়। কিন্তু আপিল দায়ের করার সাত মাস পরও কোনো ফল না পেয়ে অবশেষে তিনি রিট করেছেন।

“ওই রিটের শুনানি শেষে উচ্চ আদালত গত ৬ অক্টোবর অপসারণ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দেওয়া আদেশ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে এবং কেন তাকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নিতে নির্দেশ দেওয়া হবে না জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন।”
 
অধ্যাপক ড. মোর্শেদ হাসান খান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএনপি-জামায়াতপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দলের যুগ্ম-আহ্বায়ক। ২০১৮ সালের ২৬ মার্চ একটি জাতীয় দৈনিকের স্বাধীনতা দিবস সংখ্যায় তার লেখা ‘জ্যোতির্ময় জিয়া’ শিরোনামে এক নিবন্ধ প্রকাশিত হয়।
 
ওই নিবন্ধে বঙ্গবন্ধুর অবমাননা, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্পর্কে ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্যের অভিযোগ তোলে ছাত্রলীগ। এরপর একই বছরের ২ এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ মোর্শেদ হাসান খানকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম থেকে সাময়িকভাবে অব্যাহতি দিয়ে উপ-উপাচার্য মুহাম্মদ সামাদকে আহ্বায়ক করে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে।
 
অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়। এ অবস্থায় মোর্শেদ হাসান খানের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া যায়, তা নিয়ে আইনি সুপারিশ করতে ২০১৮ সালের ৩০ এপ্রিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য হিসেবে তৎকালীন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমকে দায়িত্ব দেয় বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট।
 
একই বছরের ২৯ মে অ্যাটর্নি জেনারেল ওই লেখাকে ইতিহাস বিকৃতি বলে উল্লেখ করে শাস্তির সুপারিশ করেন এবং চাকরি থেকে অব্যাহতির কথা বলেন। ওই সুপারিশের পর বিষয়টি অধিকতর পর্যালোচনার জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট সদস্য সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী এএফএম মেজবাহউদ্দিনকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের একটি ‘বিশেষ ট্রাইবুন্যাল’ গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।
 
ওই ট্রাইব্যুনালের সুপারিশের ভিত্তিতে গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর সিন্ডিকেট সভায় অধ্যাপক মোর্শেদ হাসান খানকে চাকরি থেকে অব্যাহতির সিদ্ধান্ত হয়। পরে সেটি তাকে ৬ অক্টোবর জানায় কর্তৃপক্ষ।


মন্তব্য