করোনাভাইরাস

প্রাথমিকের সমাপনী পরীক্ষা বাতিল হচ্ছে

চলতি বছরের পিইসি ও ইইসি পরীক্ষা বাতিল হচ্ছে
করোনার কারণে চলতি বছরের পিইসি ও ইইসি পরীক্ষা বাতিল হচ্ছে  © ফাইল ফটো

করোনাভাইরাসের কারণে চলতি বছরের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষা হচ্ছে না। এ পরীক্ষা বাতিলের প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ ছাড়া পিইসির মতো ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী (ইইসি) পরীক্ষাও না নেওয়ার চিন্তা চলছে বলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে। 

জানা গেছে, পরীক্ষা না নিয়ে এর পরিবর্তে ‘বাড়ির কাজ’ দিয়ে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়নের মাধ্যমে নতুন শ্রেণিতে তোলা হবে। অটোপাস দেওয়া হবে না এবার। সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে সম্মতি পেলে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছে।

শিগগিরই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এ সংক্রান্ত সারসংক্ষেপ পাঠানো হবে। গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ইতিমধ্যে ইঙ্গিত দিয়েছেন, চলতি বছরের জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা নাও হতে পারে। করোনার কারণে এ চার পরীক্ষা গত বছরও নেওয়া হয়নি।

তবে গত বছর প্রাথমিক সিদ্ধান্ত এসেছিল আগস্টের প্রথম সপ্তাহে। এবার তার ভাগেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে। গত বছর পরীক্ষা না নেওয়ায় মেধাবৃত্তিও দেওয়া হয়নি কাউকে।

প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন বলেন, বর্তমানে সবকিছু বন্ধ রয়েছে। যদিও বিকল্প পদ্ধতিতে আমরা পাঠদান করে যাচ্ছি। কিন্তু শিক্ষার্থীদের একদিনও ক্লাসে আনতে পারিনি। তাই এবার আমাদের পিইসি পরীক্ষা নেওয়ার চিন্তা নেই। শিগগিরই প্রধানমন্ত্রীর কাছে এ ব্যাপারে প্রস্তাবের সারসংক্ষেপ পাঠানো হবে বলে জানান তিনি।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ছাত্র-ছাত্রীদের শিখন ঘাটতি পূরণে টেলিভিশন ও বেতারে শিক্ষার্থীদের পাঠদানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ঘাটতি পূরণে যুক্ত করা হয়েছে ‘বাড়ির কাজ’। তৈরি হয়েছে ‘অন্তর্র্বতীকালীন পাঠপরিকল্পনা’। সপ্তাহে একদিন শিক্ষার্থীর বাড়ি গিয়ে পড়া বুঝিয়ে দিয়ে আসবেন শিক্ষক। এ সংক্রান্ত পাঠ পরিকল্পনাটি প্রণয়ন জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমি (নেপ)।

এ বিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের (ডিপিই) মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বাড়ির কাজের মাধ্যমে পিইসি পরীক্ষার্থীদের মূল্যায়ন চলবে। ক্লাসে আনা সম্ভব হলেও তাদের বার্ষিক পাঠপরিকল্পনার আলোকে পড়ানো হবে। তাদেরকে এ প্রক্রিয়ায় মূল্যায়নের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে।’ তারা অটোপাস পাবে না বলেও জানান তিনি।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ