পড়ানোর সময় ছাত্রীর উরুতে হাত, টেবিলের নিচ থেকে ভিডিও ধারণ

যৌন নিপীড়ন
প্রতীকি ছবি  © ফাইল ফটো

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে প্রাইভেট পড়ানোর সময় ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে স্কুলের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। যৌন হয়রানির ওই ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরালও হয়েছে। এ ঘটনায় ওই শিক্ষকের শাস্তি চেয়ে প্রধান শিক্ষক বরাবর আবেদন করেছেন ওই স্কুলের শিক্ষার্থীরা। ঘটনার সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি।

ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার সলিমগঞ্জ এ আর এম উচ্চ বিদ্যালয়ে। অভিযুক্ত শিক্ষকের নাম মো: আল-আমিনের বিরুদ্ধে। আল আমিন ওই স্কুলের শরীর চর্চা বিভাগের শিক্ষক।

জানা গেছে, অভিযোগ পাওয়ার পর ঘটনা তদন্তে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। ঘটনার বিষয়ে তদন্ত কমিটির প্রধান সিনিয়র শিক্ষক আবুল হোসেন বলেন, ‘ঘটনার সময় ওই ছাত্রীর সঙ্গে যেসব শিক্ষার্থী প্রাইভেট পড়ছিল তাদের সঙ্গে ও অভিযুক্ত শিক্ষকের সঙ্গে আমরা কথা বলেছি। ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ভিডিও চিত্র পর্যালোচনা করা হয়েছে। তদন্তে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। আমরা ইতোমধ্যে প্রতিবেদন জমা দিয়েছি।’

স্থানীয় ও অভিযোগকারী শিক্ষার্থীদের তথ্য সূত্রে জানা যায়, অভিযুক্ত শিক্ষক আল-আমিন ২০১৩ সালে সলিমগঞ্জ এ আর এম উচ্চ বিদ্যালয়ে শরীরচর্চা শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পান। তখন থেকে বিভিন্ন বাড়িতে বাসা ভাড়া নিয়ে শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়াতেন। সম্প্রতি হাইস্কুল সংলগ্ন নাজিম উদ্দিনের বাড়িতে দু’টি রুম ভাড়া নিয়ে শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়ানো শুরু করেন। গত ২৫ ফেব্রুয়ারি সকালে যথারীতি প্রাইভেট পড়ার সময় টেবিলের নিচ দিয়ে এক ছাত্রীর উরুতে স্পর্শ করেন। ওই ছাত্রী বার বার হাত সরিয়ে দিলেও তিনি একই কাজ করতে থাকেন। সেই সময় এক শিক্ষার্থী বিষয়টি টের পেয়ে গোপনে টেবিলের নিচ দিয়ে দৃশ্যটি ভিডিও চিত্র ধারণ করেন। ঘটনার পরের দিন সকালে অভিযোগ দেয় শিক্ষার্থীরা। একই সঙ্গে, তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়।

শিক্ষার্থীরা জানিয়েছে, শিক্ষক আল আমিন প্রাইভেট পড়ানোর সময় তার পাশে কোনো ছেলে ছাত্রকে বসতে দিতেন না। বরাবরই ছাত্রীদের তার পাশে বসিয়ে পড়াতেন। তার বিরুদ্ধে অন্য ছাত্রীদের সঙ্গেও যৌন হয়রানির অভিযোগ রয়েছে।

এ ব্যাপার জানতে চাইলে অভিযুক্ত শিক্ষক আল-আমীন বলেন, ‘আসলে ভাই কি বলব, বলার ভাষা নেই। আমি মরে গেছি। ঘটনার সত্য-মিথ্যা কিছুই বলব না। কমিটির কাছ থেকে আমি এক মাসের সময় নিয়েছি বোঝাপড়ার জন্য।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্কুলের বিক্ষুব্ধ কয়েকজন শিক্ষার্থী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলে, বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটি ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। বরং ওই শিক্ষকের নিজ ইচ্ছায় চাকরি ছেড়ে দিয়ে চলে যাওয়ার আবেদন অনুমোদন করেছে। এ ঘটনা তাদেরকে ব্যথিত করেছে।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক আহম্মদ আলী ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘আমরা বিষয়টি নিয়ে সভা করেছি। স্কুল ব্যবস্থাপনা কমিটির ওই সভায় অভিযুক্ত শিক্ষক স্কুল থেকে চাকরি ছেড়ে দিয়ে চলে যাবেন মর্মে কমিটির সভাপতি বরাবর একটি লিখিত আবেদন দিয়ে এক মাসের সময় চেয়েছেন।’

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোকাররম হোসেন বলেন, বিষয়টি খুবই ন্যাক্কারজনক ও নিন্দনীয়। স্কুল ব্যবস্থাপনা কমিটি তাকে অব্যাহতি দেয়ার ব্যবস্থা নিয়েছে বলে শুনেছি।


মন্তব্য