শিক্ষার্থীদের উস্কানিমূলক স্ট্যাটাস-কমেন্ট নিয়ে বুয়েটের সর্তকতা

শিক্ষার্থীদের উস্কানিমূলক স্ট্যাটাস-কমেন্ট নিয়ে বুয়েটের সর্তকতা
  © ফাইল ফটো

সামাজিক যােগাযোগ মাধ্যমে স্ট্যাটাস ও কমেন্ট করার ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের আরও সর্তক হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যলয় (বুয়েট) কর্তৃপক্ষ। একইসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্তি, শৃঙ্খলা ও সম্প্রীতি বজায় রাখার স্বার্থে কোন শিক্ষক/কর্মকর্তা/কর্মচারী/শিক্ষার্থী বা কোন গােষ্ঠীর ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে উস্কানিমূলক স্ট্যাটাস-কমেন্ট করলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। সম্প্রতি বুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিদপ্তর থেকে এ সংক্রান্ত দুটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।

২১ অক্টোবর পরিদপ্তরের পরিচালক  অধ্যাপক ড. মাে. মিজানুর রহমান স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, কতিপয় ছাত্র-ছাত্রী তাদের ফেসবুক গ্রুপ/পেজে এই বিশ্ববিদ্যলয়ের কোন শিক্ষার্থী বা গােষ্ঠীর ধর্মীয় মূল্যবােধ বা অনুভূতিতে আঘাত করে বিভিন্ন ধরনের বক্তব্য ও মন্তব্য প্রদান করছেন বলে অভিযােগ পাওয়া গেছে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্তি, শৃঙ্খলা ও সম্প্রীতি বজায় রাখার স্বার্থে এই বিশ্ববিদ্যলয়ের শিক্ষার্থী বা গােষ্ঠীর ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে উস্কানিমূলক বক্তব্য ও মন্তব্য প্রদানে বিরত থাকার জন্য সকল ছাত্র-ছাত্রীকে পরামর্শ দেয়া যাচ্ছে। যদি কোন ছাত্র-ছাত্রী সামাজিক যােগাযোগ মাধ্যমে এই বিশ্ববিদ্যলয়ের কোন সম্মানীত শিক্ষক/কর্মকর্তা/কর্মচারী বা শিক্ষার্থী বা গােষ্ঠীর ধর্মীয় মূল্যবােধ বা অনুভূতিতে আঘাত করে এমন কিছু প্রকাশ বা প্রচার করেন বা করান, আইসিটি আইন ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তা হবে একটি শাস্তিযােগ্য অপরাধ।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, আইসিটি আইন ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় আইনি জটিলতা থেকে মুক্ত থাকার লক্ষ্যে সামাজিক যােগাযোগ মাধ্যমে বক্তব্য ও মন্তব্য প্রদানের ক্ষেত্রে অধিকতর সচেতন হওয়ার জন্য সকল ছাত্র-ছাত্রীদের পরামর্শ প্রদান করা যাচ্ছে। ভবিষ্যতে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন ছাত্র-ছাত্রীর বিরুদ্ধে এই বিশ্ববিদ্যলয়ের কোন সম্মানীত শিক্ষক/কর্মকর্তা/কর্মচারী বা শিক্ষার্থী বা গােষ্ঠীর ধর্মীয় মূল্যবােধ বা অনুভূতিতে আঘাত করে বক্তব্য ও মন্তব্য প্রদানের অভিযােগ পাওয়া গেলে তদন্ত সাপেক্ষে সংশ্লিষ্ট ছাত্র-ছাত্রীর বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এর আগে ১৯ অক্টোবর আরেক বিজ্ঞপ্তিতে বুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিদপ্তর বলছে, বুয়েটের অধিকাংশ ছাত্র-ছাত্রী আইসিটি আইন এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিষয়ে অবগত না থাকায় সামাজিক যােগাযােগ মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের মানহানিকর বক্তব্যে ও মন্তব্য প্রদান করে আইনি জটিলতার সম্মুখীন হচ্ছেন। আইসিটি আইন ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় আইনি জটিলতা থেকে মুক্ত থাকার লক্ষ্যে সামাজিক যােগাযােগ মাধ্যমে বক্তব্য ও মন্তব্য প্রদানের ক্ষেত্রে অধিকতর সচেতন হওয়ার অন্য সকল ছাত্র-ছাত্রীদের পরামর্শ প্রদান করা যাচ্ছে। ভবিৎষতে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন ছাত্র-ছাত্রী আইসিটি আইন ও ডিজিটাল নিরপাত্তা আইন অনুযায়ী আইনি জটিলতার সম্মুখীন হলে এই বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনভাবে দায় থাকবে না।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ