ওয়ার্ল্ড মুট কোর্ট প্রতিযোগিতায় ইতিহাস গড়লো ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়

প্রতিযোগিতা
প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া বিজয়ীরা  © টিডিসি ফটো

বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম বারের মত ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের মুট কোর্ট দল স্বনামধন্য নেলসন ম্যান্ডেলা হিউম্যান রাইটস মুট কোর্ট প্রতিযোগিতার ১৩তম সংস্করণের নক আউট পর্যায়ে পৌঁছেছে। প্রতিযোগিতাটিকে ওয়ার্ল্ড মুট কোর্ট প্রতিযোগিতা এবং মুট কোর্ট এর অলিম্পিকও বলা হয়ে থাকে। 

অক্সফোর্ড, ওসলো, সিংগাপুর, নিউ সাউথ হয়েলেস ইত্যাদি বিশ্ববিদ্যাল সহ বিশ্বের ৩৭টি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে প্রতিযোগিতা করে সেরা দশটি দলের মধ্যে লিখিত পর্বে ‘তৃতীয় স্থান’ এবং মৌখিক পর্বে ‘দ্বিতীয় স্থান’ অর্জন করে ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়।

যুক্তরাজ্য, কেনিয়া, সুইজারল্যান্ড, ভারত, নাইজেরিয়া, রাশিয়া, ব্রাজিলের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ছাড়াও অন্যান্য নামকরা বিশ্ববিদ্যালয় এর শিক্ষার্থিদের মধ্যে নুসরাত জাহান নিশাত ৩য় এবং আখলাক-উল-ইসলাম তুষার ৫ম সেরা বক্তার স্থান অধিকার করেন।

ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয় দলের কোচ হিসেবে ছিলেন সিনিয়র লেকচারার মো. পিজুয়ার হোসেন।  ইংলিশ, ফরাসী এবং স্প্যানিশ এই তিনটি ভাষায় নেলসন ম্যান্ডেলা মুট কোর্ট প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

নেলসন ম্যান্ডেলা ওয়ার্ল্ড মুট কোর্টে অংশ নিতে প্রতিযোগিতামূলক দলগুলো লিখিত যুক্তিসহ স্মারক জমা দিয়ে আবেদন করে, যা বিশেষজ্ঞদের একটি প্যানেল দ্বারা মূল্যায়ন করা হয়। প্রতিটি ইউএন অঞ্চল থেকে সেরা ১০টি দলকে প্রাথমিকের অংশ নিতে আমন্ত্রণ জানানো হয়।

কোয়ার্টার ফাইনাল, সেমিফাইনাল এবং ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয় সুইজারল্যান্ডের জেনেভাতে। করোনার প্রভাবের কারণে, ১৩তম নেলসন ম্যান্ডেলা ওয়ার্ল্ড হিউম্যান রাইটস মোট কোর্টের মৌখিক পর্ব অনলাইন প্লাটফর্মে অনুষ্ঠিত  হয় ৩ থেকে ১৬ জুলাই পর্যন্ত।

সাফ্যলের সাথে বিশ্বের দরবারে দলীয় ও স্বতন্ত্র পার্ফরমেন্সের মাধ্যমে প্রশংসা কুঁড়িয়েছে ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের দলটি। ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয় এই প্রতিযোগিতায় একমাত্র দল যারা তিনটি বিভাগেই (লিখিত, মৌখিক এবং সেরা বক্তা) পুরষ্কার অর্জন  করে।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ