আড্ডা-সেলফিতে সীমাবদ্ধ, এখনো জমে উঠেনি বইমেলা

আড্ডা-সেলফিতে সীমাবদ্ধ, এখনো জমে উঠেনি বইমেলা
  © ফাইল ফটো

এবারের অমর একুশে গ্রন্থমেলার ১২তম দিন শেষ হয়েছে আজ। তবে এখনো জমে উঠেনি মেলা। পাশাপাশি বই বিক্রি কম হওয়ায় মেলার স্টল থেকে অনেক বিক্রেতা চাকরিও হারাচ্ছেন। মাঠভর্তি লোকজনের কোলাহল থাকলেও তাদের কেউই বই পাঠক কিংবা ক্রেতা নন। ফলে আড্ডা-সেলফিতে সীমাবদ্ধ থাকছে লোকারণ্য মেলা।

সোমবার বইমেলার বিভিন্ন স্টলে ঘুরে বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য জানা গেছে। প্রকাশকেরা জানিয়েছেন, করোনার কারণে এবারের বইমেলা শুরু হয়েছে ১৮ মার্চ থেকে। মেলা ভিন্ন সময়ে শুরু হওয়ায় অনেক পাঠক বইমেলায় আসছেন না। আবার অনেকে গরমের কারণেও আসছেন না।

মেলা ঘুরে দেখা যায়, প্রতিটি স্টলের সামনে, খাবারের দোকানে এবং লেকের পাড়ে দল বেঁধে আড্ডায় মত্ত মানুষ। এরমধ্যে প্রায় সবাই আড্ডার সাথে মোবাইল সেলফিতে ব্যস্ত। অথচ তাদের সামনেই থরে থরে বইয়ে সাজানো স্টলগুলো খালি পড়ে আছে। এর মধ্যে পাঁচটি বইয়ের প্যাভিলিয়ন ঘুরে তিনজন ক্রেতার দেখা মিলেছে।

আদর্শ প্রকাশনীর সামনে দাঁড়িয়ে থাকা আরিয়ান জানান, এবারের বইমেলার চিত্র অন্যান্য বছরের ঠিক উল্টো। প্রতিদিন মেলা প্রাঙ্গণে মানুষ ভিড় করলেও এদের মধ্যে পাঠক নেই। এরা প্রতিদিন আড্ডা শেষে চলে যান। বই হাতে নিয়েও দেখেন না। ফলে যেখানে পাঠক নেই সেখানে বইয়ের ক্রেতাও থাকবে না এটাই স্বাভাবিক।

অপর দিকে তাম্রলিপি প্রকাশনীতে গিয়ে দেখা যায়, ভেতরে প্রকাশনীটির একাধিক লেখক পাঠকদের অপেক্ষা করছেন। পাঠকরা তাদের কাছ থেকে অটোগ্রাফ নিচ্ছেন আর সেলফি তুলতে স্টলের সামনে প্রচণ্ড ভিড় করেছেন। এদের মন রক্ষায় লেখকরা সেলফির সুযোগ দিলেও তাদের কারো মুখে কোনো মাস্ক ছিল না।

প্রথমা প্রকাশনীর বিক্রয়কর্মীর শফিকুল ইসলাম বলেন, এবারের বই মেলায় অন্যরকম চিত্র দেখছি। অন্যান্যবারের তুলনায় ক্রেতার সংখ্যা একেবারেই কম। বইমেলার প্রথম কয়েকদিন মানুষের ভিড় লেগে থাকত কিন্তু এবার সেরকম নেই। তবে দিন বাড়ার সাথে সাথে হয়তো ক্রেতার সংখ্যা আরও বাড়বে।

বইমেলা প্রতিদিন বিকেল ৩টায় শুরু হয়ে চলবে রাত ৯টা পর্যন্ত। ছুটির দিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত মেলা খোলা থাকবে। তবে শুক্রবার বেলা ১টা থেকে বেলা ৩টা এবং শনিবার বেলা ১টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত বিরতি থাকবে। বইমেলা চলবে আগামী ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ