ধর্ষণে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে শেকৃবিতে মানববন্ধন

ধর্ষণে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে শেকৃবিতে মানববন্ধন
মানবন্ধনে শিক্ষার্থীরা  © টিডিসি ফটো

সাম্প্রতিক সময়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া ধর্ষণের প্রতিবাদ জানিয়ে মানববন্ধন করেছে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে ক্যাম্পাসের মূল চত্বর ও কলেজগেটে এই কর্মসূচি পালিত হয়।

সরেজমিনে দেখা যায়, শিক্ষার্থীরা ধর্ষণের প্রতিবাদে বিভিন্ন লেখা সম্বলিত পোস্টার হাতে দাড়িয়ে আছেন। এ সময় তাদের ‘স্বাধীন দেশে ধর্ষণের ভয়ে ঘরে রই, এই স্বাধীনতার মূল্য কই?’, ‘কেউ ধর্ষক, কেউ দর্শক রাষ্ট্রের তাতে কি আসে যায়; আমাদের শুধু পোস্টার হাতে দাঁড়িয়ে থাকার দায়’, ‘ধর্ষণের একমাত্র শাস্তি, জনসম্মুখে ফাঁসি চাই’ ইত্যাদি স্লোগান দিচ্ছেন।

দেশে ধর্ষণের ধারাবাহিক ইতিহাস তুলে ধরে কর্মসূচির আহ্বায়ক শেকৃবির এগ্রিবিজনেস ম্যানেজমেন্ট বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মোহাইমিনুল ইসলাম বলেন, ‘গত তিন বছরে দেশে ৩হাজার ৯৩ জন নারী ও শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। আর চলতি মাসেই ৫৯ জন ধর্ষিত হয়েছে। একটি স্বাধীন দেশে এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া সম্ভব না। এই পরিস্থিতিতে আমাদের কারো মা-বোনই নিরাপদ না। আমরা তাদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন।’

তিনি আরও বলেন, ‘ধর্ষণের মতো জঘন্য অপরাধের একমাত্র শাস্তি হওয়া উচিৎ মৃত্যুদণ্ড। অনতিবিলম্বে সকল ধর্ষকের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। দেশের সর্বস্তরের মানুষকে এদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। অন্যথায় আগামীকাল আমার, আপনার আপনজন ধর্ষণের শিকার হবে।’

এগ্রিকালচার বিভাগের শিক্ষার্থী আশিক আল মাহবুব বলেন, ‘ধর্ষণ একটি মানবতাবিরোধী অপরাধ। ধর্ষণ মানে কাউকে খুন করা। খুনির বিচার যেমন মৃত্যুদণ্ড ঠিক তেমনি ধর্ষকের বিচারও হওয়া উচিত মৃত্যুদণ্ড। তবেই এই ঘৃণ্য অপরাধ বাংলার মাটি থেকে নির্মূল হবে বলে মনে করি।’

উল্লেখ্য, সিলেটে ছাত্রলীগ কর্তৃক স্বামীর সামনে স্ত্রী, আদিবাসীসহ সাম্প্রতিক সময়ে বেশকিছু ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। প্রতিবাদে সারাদেশে বিভিন্ন সামাজিক, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের নেতাকর্মীরা ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করে আসছেন।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ