রাবির ‘বি’ ইউনিট

প্রথমে অনুপস্থিত, সংশোধিত ফলে ১৪তম সাদি

প্রথমে অনুপস্থিত, পরে সংশোধিত ফলে ১৪তম সাদি
প্রথমে অনুপস্থিত, পরে সংশোধিত ফলে ১৪তম সাদি  © ফাইল ফটো

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ২০২০-২১ সেশনের ভর্তি পরীক্ষার ‘বি’ ইউনিটের প্রথম প্রকাশিত ফলে ‘অনুপস্থিত’ ছিলেন শেখ সাদি রাজন। সোমবার (১১ অক্টোবর) রাতে এ রেজাল্ট প্রকাশিত হয়। পরে মঙ্গলবার দুপুরে সংশোধিত ফলাফল প্রকাশ হলে ১৪তম মেধাস্থান অর্জন করেন তিনি।

সংশোধিত ফলাফল পেয়ে ভর্তীচ্ছু শেখ সাদি রাজন বলেন, আমি পরীক্ষার ফলাফল নিয়ে আশাবাদী ছিলাম। অথচ আমাকে অনুপস্থিত দেখানো হয়। তখন মনটা খুব খারাপ হয়ে যায়। পরে সংশোধিত ফলাফলে আমি ১৪তম মেধাস্থান অর্জন করি।

এর আগে, গত ৬ অক্টোবর তিন শিফটে ‘বি’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ৩১ হাজার ৫১৭জন শিক্ষার্থী অংশ নেন। সোমবার রাতে প্রকাশিত ফলাফলে দেখা যায়, বি-২ গ্রুপে দেড় হাজারেরও বেশি শিক্ষার্থীকে অনুপস্থিত দেখানো হয়েছে। অথচ এদের মধ্যে অনেকেই পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল।

পড়ুন: নতুন ফল পরিবর্তন হচ্ছে না, অসন্তোষ থাকলে যোগাযোগের অনুরোধ

এ ছাড়াও অনেকেই আশানুরূপ ফলাফল না পাওয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনা শুরু হয়। একইসঙ্গে অনেকেই ফলাফল পুনর্মূল্যায়নের দাবি করেন।

এদিকে, ত্রুটির বিষয়টি নজরে আসলে ওয়েবসাইট থেকে ফলাফল সরিয়ে নেয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। পরবর্তীতে আবারো সংশোধনী ফলাফল প্রকাশ করা হয়। এতে পূর্বে চান্স পাওয়া অসংখ্য ভর্তীচ্ছুর মেধাক্রম পরিবর্তন হয়ে যায়।

এমনই একজন ভর্তীচ্ছু আল আরাফা তামান্না। ত্রুটিযুক্ত ফলাফলে তার প্রাপ্ত নম্বর ছিল ৭৩.৬৫ এবং মেধাক্রম ছিল ১৩১ তম। পরে সংশোধিত ফলাফলে সে অকৃতকার্য হয়। তার প্রাপ্ত নম্বর দেখানো হয় ৩৯.৬৫।

‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার চীফ কো-অর্ডিনেটর অধ্যাপক জিনাত আরা বলেন, টেকনিক্যাল সমস্যার কারণে ফলাফলে ত্রুটি দেখা দিয়েছিল। পরে আমরা সেটি ঠিক করে ফলাফল প্রকাশ করেছি। এখন এ ফলাফলে আর কোন সমস্যা নেই। সুতরাং এটি আর পরিবর্তনও হচ্ছে না। তবে যদি কোন শিক্ষার্থী সংশোধিত ফলে সন্দেহ প্রকাশ করেন, তাহলে সংশ্লিষ্ট কমিটির সাথে যোগাযোগ সাপেক্ষে তাকে সঠিক তথ্য জানিয়ে দেওয়া হবে।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ