সিরাজগঞ্জে কবরে আগুন, ঘটনাটি অলৌকিক নয়

গুজব
কবরস্থানের খাদেম, স্থানীয় লোকজন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এটি অলৌকিক কোন ঘটনা নয় বলে জানায়  © সংগৃহীত

‘মাই প্রবাস টিভি’ নামে ফেসবুকের একটি পেজ থেকে গতকাল শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) বিকেলে ‘কিয়ামতের আলামত দেখুন খারাপ মানুষ কবরে কিভাবে আগুন জ্বলছে’ শিরোনামে একটি ভিডিও আপলোড করা হয়। ভিডিওতে উপস্থাপক বলেন, সুপ্রিয় দর্শক মাঝেমাঝে কবরের মধ্যে অলৌকিক কিছু দৃশ্য দেখতে হয়। আজকেও এমন একটি ঘটনা দেখাবো, যা কবরের মধ্যে হঠাৎ দাউ দাউ করে আগুন আগুন জ্বলে উঠছে। আর সেখান থেকে চিৎকার আসছে। গ্রামের মানুষ জানায়, ওই লোক সুদ, ঘুষ এবং মানুষকে নির্যাতন করতো। ৫ মিনিট ১৫ সেকেন্ডের ওই ভিডিওর শেষের দিকে ওই  উপস্থাপক বলেন, যাতে মানুষ ইসলাম ও সঠিক পথে আসতে পারে এজন্য আমরা এসব ঘটনা তুলে ধরি।

শুধু এই পেজ থেকে নয়, ফেসবুক, ইউটিউবসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে এই ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে। সেখানে এটিকে অলৌকিক ঘটনা বলে দাবি করা হচ্ছে। সিরাজগঞ্জের পৌর এলাকার রহমতগঞ্জ কবরস্থানের এ ঘটনাটি ইতিমধ্যে আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে। 

তবে কবরস্থানের খাদেম, স্থানীয় লোকজন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এটি অলৌকিক কোন ঘটনা নয় বলে জানিয়েছেন। যা ইতোমধ্যে মেইনস্ট্রিম মিডিয়া তাদের অনলাইন ও প্রিন্ট ভার্সনে ঘটনাটির বিস্তারিত তুলে ধরে সংবাদ প্রকাশ করেছে।

স্থানীয় মনির রহমানের উদ্বৃতি দিয়ে দৈনিক মানবজমিনকে জানায়, “১০ জানুয়ারি সন্ধ্যায় ঠিক মাগরিবের নামাজের সময় কে বা কারা কবরস্থানের পলিথিন ও কাগজ দিয়ে আগুন লাগিয়ে দেয় এবং সেটা ভিডিও করে ভাইরাল করার জন্য ফেসবুক পেজে ছাড়ে। ফেসবুকে এই ভিডিও দেখে গত তিনদিন থেকে কবরস্থানে লোকজন সমাগম করে। তবে কারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে তা আমরা কেউ দেখিনি।”

কবরস্থানের খাদেম আফজাল হোসেন ও মাসুদ রানার উদ্বৃতি দিয়ে জাগো নিউজ জানায়, “কিছু পলিথিন একত্রিত করে কে বা কারা কবরস্থানে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল। আমরা মাগরিবের নামাজ শেষে একটি কবরে আগুন দেখতে পাই। পরে পানি দিয়ে আগুন নেভানো হয়। তাদের উদ্দেশ্য ছিল ভিডিওটি ফেসবুকের মাধ্যমে ভাইরাল করে ফেসবুক পেজে লাইক বাড়ানোর জন্য। এ নিয়ে গুজব না ছড়ানোর জন্য অনুরোধ জানান তারা।”

‘টিকটক করতে কবরে আগুন, অভিযুক্তদের খুঁজছে পুলিশ’ শিরোনামে যমুনা টিভির অনলাইনে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, “সিরাজগঞ্জের পৌর এলাকার রহমতগঞ্জ কবরস্থানের একটি কবর থেকে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। পুলিশের দাবী টিকটকের জন্য ভিডিও বানাতে এমন কাজ করতে পারে অজ্ঞাত দুষ্কৃতিকারীরা।” 

ঘটনাটি অলৌকিক বলে প্রচার করার কয়েকটি ভিডিও


মন্তব্য

x