স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে কমনওয়েলথের স্বীকৃতি পেলেন বাংলাদেশি তরুণ

ফয়সাল ইসলাম
ফয়সাল ইসলাম  © টিডিসি ফটো

স্বল্প খরচে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর মাঝে স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে কমনওয়েলথের ইয়ং পারসন অব দ্যা ইয়ার নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশি ফয়সাল ইসলাম। তালিকায় থাকা আরও ২০ তরুণ উদ্ভাবক, অধিকারকর্মী, উদ্যোক্তা সবাইকে কমনওয়েলথ ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড ২০২১-এ ভূষিত করা হয়েছে। 

এ স্বীকৃতির বিষয়ে কমনওয়েলথ জানিয়েছে, বাংলাদেশ থেকে ফয়সাল তার কাজের জন্য ২০২১ সালের কমনওয়েলথ ইয়ং পারসন নির্বাচিত হয়েছেন। তার কাজের স্বীকৃতির স্বরূপ কমনওয়েলথ তাকে ৫ হাজার ইউরো পুরস্কার দিয়েছে।

বাংলাদেশের ফয়সাল ইসলাম তিন চাকার অ্যাম্বুলেন্সে জরুরি স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে আলোচনায় আসেন। ‘সেইফহুইল’ নামের তার প্রতিষ্ঠানে অ্যাম্বুলেন্সের সংখ্যা এখন ১০টি। গ্রামীণ জনপদে হাজারো মানুষকে নামমাত্র মূল্যে সেবা দিচ্ছে তার প্রতিষ্ঠান।

কমনওয়েলথকে দেয়া সাক্ষাৎকারে ফয়সাল তার প্রকল্পের পেছনে সবচেয়ে বেশি প্রেরণা দেয়া বন্ধুর কথা স্মরণ করেছেন। যিনি একটি সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে অ্যাম্বুলেন্স অপ্রাপ্যতার কারণে মারা যান। তার বাবা-মাকে এই পুরষ্কার উৎসর্গ করে ফয়সাল বলেন, ‘‘আমি এই সম্মাননা পেয়ে অত্যন্ত সম্মানিত। এই স্বীকৃতিটি আমার প্রকল্পটিকে আরও বেশি বৃদ্ধি করতে এবং আরও বেশি লোকের সেবা করতে সহায়তা করবে।’’

ফয়সাল বলেন, বাংলাদেশে অ্যাম্বুলেন্সের অভাব রয়েছে, বিশেষত গ্রামীণ অঞ্চলে। সমগ্র জনসংখ্যার সেবা দেয়ার জন্য বাংলাদেশে মাত্র ১২শ অ্যাম্বুলেন্স রয়েছে, যা ৮৮,০০০ লোকের জন্য একটি। এর জন্য আমি বাংলাদেশের গ্রামীণ জনগণের জন্য সাশ্রয়ী জরুরি পরিষেবা পরিষেবা প্রদানকারী ‘সেইফহুইল’ প্রতিষ্ঠিত করেছি।

তিনি বলেন, আমরা একটি মিনি অ্যাম্বুলেন্স বানিয়েছি, যা গতানুগতিক অ্যাম্বুলেন্সের চেয়ে দুর্দান্ত ছিল। আমাদের মিশনটি সাশ্রয়ী মূল্যের, সহজলভ্য অ্যাক্সেসযোগ্য জরুরী পরিষেবা পরিষেবা সরবরাহের লক্ষ্যে বাংলাদেশের প্রত্যান্ত অঞ্চলের মানুষকে সেবা দিয়েছে।

এছাড়া কল্যাণমূলক কাজ ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখায় পুরস্কার পাচ্ছেন ভারতের এলিনা আলম, পাকিস্তানের সৈয়দ ওমর আমির ও মালয়েশিয়ার মোগেশ সাবাবাথির। ক্যারিবীয় অঞ্চল থেকে তালিকায় আছেন বার্বাডোসের তাহির বুলবুলিয়া, গ্রানাদার বেভন শ্যাডেল চার্লস, ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগোর ডাউসের চার্লস ও গায়ানার জুবিলান্তে কাটিং।

ইউরোপ ও কানাডা অঞ্চল থেকে আছেন সাইপ্রাসের দিয়াগো আরমান্দো অ্যাপ্রিকিও, যুক্তরাজ্যের সিয়েনা কাস্টেলন, ব্র্যাডলি হেসলপ ও ইলেনর ম্যাকলনটোশ। প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের সামোয়া থেকে আছেন মাসেলিনা লুটা, টোঙা ইলায়সেন লোলোহিয়া মানু, ফিজির শানাল সিভান ও অস্ট্রেলিয়ার টিম লো সুর্ডো।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ