সাংবাদিক রোজিনাকে হয়রানির নিন্দায় ৫ ব্যারিস্টার

রোজিনা ইসলাম
ঢাকার সিএমএম আদালত থেকে কারাগারে নেওয়া হয় সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে  © সংগৃহীত

প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে হয়রানির নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন পাঁচজন আইনজীবী।

বিবৃতি দাতারা হলেন ব্যারিস্টার শেখ মঈনুল করিম, ব্যারিস্টার সোলায়মান তুষার, ব্যারিস্টার মেহেদী হাসান (বনি) ব্যারিস্টার আহমেদ আল-রাজী ও ব্যারিস্টার মো. কাউছার। আজ মঙ্গলবার তারা এই বিবৃতি গণমাধ্যমে পাঠান।

বিবৃতিতে আইনজীবীরা বলেন, সাংবাদিকের পেশাগত দায়িত্বপালনকালে তাকে হেনস্তার অভিযোগ উঠেছে। এ ধরণের আচরণ স্বাধীন সাংবাদিকতার বিরোধী।

পাঁচ আইনজীবী অবিলম্বে রোজিনা ইসলামের মুক্তি দাবি করেন।

সরকারি নথিপত্র চুরির অভিযোগে গতকাল সোমবার রাতে শাহবাগ থানায় রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা করে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ। 

মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, সোমবার দুপুরে সচিবালয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগে যান রোজিনা ইসলাম। এ সময় তিনি মন্ত্রণালয়ের সচিবের একান্ত সচিবের কক্ষে গিয়ে গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র নেন এবং মোবাইল ফোনে ছবি তোলেন। পরে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা তাঁর শরীর তল্লাশি করে সেইসব নথিপত্র উদ্ধার করেন। 

এ অভিযোগে রোজিনাকে কয়েক ঘণ্টা সচিবালয়ে আটক রেখে সন্ধ্যার পর শাহবাগ থানায় হস্তান্তর করা হয়।

আজ সকালে আদালতে নিয়ে পাঁচ দিনের রিমান্ড চাওয়া হলে আদালত তা নাকচ করে দেন এবং আগামী বৃহস্পতিবার জামিন শুনানির দিন ধার্য করেন। রোজিনা ইসলামকে গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের হাই সিকিউরিটি সেলে রাখা হয়েছে।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ