আমরা ধর্ষণের শিকার নারীর পাশে আাছি: পুলিশ

বাংলাদেশ পুলিশের ধর্ষণবিরোধী সমাবেশ
বাংলাদেশ পুলিশের ধর্ষণবিরোধী সমাবেশ  © সংগৃহীত

ধর্ষণের শিকার ভুক্তভোগী নারীদের সহায়তায় বাংলাদেশ পুলিশ সব সময় পাশে আছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) রমনা জোনের উপ-কমিশনার সাজ্জাদুর রহমান। তিনি বলেছেন, ধর্ষণ এখন সবচেয়ে বেশি আলোচনায়। মানুষ ধর্ষণের বিরুদ্ধে সচেতন হচ্ছে। আমরা ধর্ষণের শিকারর নারীর পাশে আাছি।

বাংলাদেশে পুলিশের মোট ৬৪৭টি থানা আছে। এই থানাগুলোতে পুলিশের মোট বিট ছয় হাজার ৯১২টি। পুলিশ সদর দপ্তর জানিয়েছে, সবগুলো বিটেই আজ শনিবার ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বিরোধী সমাবেশ হয়েছে। সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টার মধ্যে অনুষ্ঠিত সমাবেশগুলোতে ধর্ষণের বিরুদ্ধে নানা প্ল্যাকার্ড নিয়ে সাধারণ মানুষ ও রাজনৈতিক নেতাকর্মীসহ অনেকেই অংশ নিয়েছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় ঢাকা শাহবাগ থানার সমাবেশে প্রধান অতিথির ব্ক্তব্যে রমনা জোনের উপ-কমিশনার সাজ্জাদুর রহমান বলেন, আমরা সারাদেশে এই সমাবেশের আয়োজন করেছি একটি বার্তা দিতে, তা হল ধর্ষণ করে রেহাই পাওয়া যাবেনা। ধর্ষককে শাস্তির আওতায় আসতেই হবে।

পুলিশের দাবি ধর্ষণ বাড়েনি, বরং আগের থেকে সংবাদমাধ্যমে এর প্রচার বেশি হচ্ছে। ডিএমপির রমনা জোনের উপ-কমিশনার সাজ্জাদুর রহমান বলেন, সংবাদ মাধ্যম কখনো ছেলেধরা, কখনো গণপিটুনির রিপোর্ট বেশি হয়। ধর্ষণের ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। আর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম বা সংবাদমাধ্যমে যখন আলোচনা হয় তখনই আমরা সক্রিয় হই এই অভিযোগও ঠিক নয়, আমরা সব সময় সক্রিয় আছি।

সমাবেশে অংশ নেয়া রেহানা পারভীন নামে একজনে বলেন, ধর্ষণের শিকার যারা হন তারা ঠিকমত পুলিশের সহযোগিতা পাননা। সহযোগিতা পেলে ধর্ষণ কমবে। তার মতে ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ডের বিধান করায় এখন ধর্ষকরা ভয় পাবে। ফলে ধর্ষণ কমে আসবে। তবে মানুষের মানসিকতায়ও পরিবর্তন আনতে হবে বলে মনে করেন তিনি।

সমাবেশে উপস্থিত খায়রুল আলম বলেন, আমাদের নারীদের প্রতি সহনশীল হতে হবে। তাদের শুভাকাঙ্খী হিসেবে পাশে থাকতে হবে। তাদের প্রতি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে। এই সমাজে তাদেরও সমান অধিকার এটা আমাদের মনে রাখতে হবে।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ