চুয়েটে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের জেরে ক্যাম্পাস বন্ধ ঘোষণা

চুয়েট
চুয়েটে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের  © সংগৃহীত

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট) ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের জেরে ক্যাম্পাসে পরিস্থিতি আরও ভীতিকর হয়ে উঠেছে। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মারামারি ও সশস্ত্র অবস্থানে গতকাল সোমবার দিনভর উত্তপ্ত পরিস্থিতির পর রাতে থেমে থেমে গুলির শব্দ শোনা গেছে। আজ মঙ্গলবার ভোররাত থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের গোলচত্বরে হেলমেট পরিহিত একটি গ্রুপকে অবস্থান করতে দেখা যায়।

চুয়েটে চলমান উত্তেজনাকর পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে আজ ১৪ জুন ২০২২ হতে ৫ জুলাই ২০২২ পর্যন্ত সকল একাডেমিক কার্যক্রম ও আবাসিক হলসমূহ বন্ধ ঘোষণা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, ডীন, ইন্সটিটিউট পরিচালক, রেজিস্ট্রার, বিভাগীয় প্রধান, প্রভোস্ট এবং ছাত্রকল্যাণ পরিচালকের সমন্বয়ে এক জরুরি সভার ভিত্তিতে আজ এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার ভোররাত থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের গোলচত্বরে হেলমেট পরিহিত একটি গ্রুপকে অবস্থান করতে দেখা যায়। সকালে চুয়েট থেকে চট্টগ্রাম শহরগামী শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী সকল বাস আটকিয়ে তা পুনরায় গ্যারেজে ফেরত পাঠায় তারা। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. রেজাউল করিম। এ ঘটনায় শিক্ষার্থীরা আতঙ্কিত, ক্যাম্পাসের শিক্ষা-কার্যক্রম ব্যহত হওয়ার শঙ্কা তাদের।

অধ্যাপক ড. রেজাউল করিম বলেন, আজ মঙ্গলবার সকালে গোলচত্বরে অবস্থান নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের একটি গ্রুপ চুয়েট থেকে চট্টগ্রাম শহরমুখী শিক্ষক, কর্মকর্তা, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীদের বাস আটকে রেখেছিল। বাসগুলো পুনরায় বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্যারেজে ফেরত পাঠানো হয়েছে। আজ সকালে বাসগুলো আর যাবে না। সম্ভব হলে বিকেল বেলার বাসগুলো যেতে পারে।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী না আসলে ক্লাস হয় না। বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন বিভাগে ছোট ছোট কিছু পরীক্ষা আছে, তাতে সমস্যা হবে না। আজ সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন, ডিন ও পরিচালকদের সঙ্গে মিটিং রয়েছে।  

চট্টগ্রামের সহকারী পুলিশ সুপার (রাঙ্গুনিয়া সার্কেল) মো. আনোয়ার হোসেন শামীম বলেন, চুয়েটে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে আমাদের পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়ন রয়েছে।  


x