কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ছাত্রের মা-বোনকে কোপাল কলেজ শিক্ষক

শিক্ষক
কলেজ শিক্ষক সানোয়ার হোসেন  © সংগৃহীত

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ছাত্রের মা ও বোনকে বটিঁ দিয়ে কুপিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে এক কলেজ শিক্ষকের বিরুদ্ধে। তার নাম সানোয়ার হোসেন (৩৫)। এ ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতার হওয়া সানোয়ার ভেড়ামারা সরকারি মহিলা কলেজের ইংরেজি বিষয়ের প্রভাষক। তিনি কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার নওদা বহলবাড়িয়া গ্রামের মো. ইদবার আলীর ছেলে। ভেড়ামারার নওদাপাড়ায় সস্ত্রীক ভাড়া থাকেন এই শিক্ষক।

সোমবার (৫ এপ্রিল) দুপুরে ভেড়ামারা পৌর শহরের নওদাপাড়া এলাকায় ছাত্রের নিজ বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় আহত দুজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ভেড়ামারা থানায় মামলা দায়ের করেছেন ভুক্তভোগীর স্বামী।

ভুক্তভোগীছাত্রের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষক সানোয়ার হোসেন দশম শ্রেণির ওই ছাত্রকে বাসায় গিয়ে পড়াতেন। সোমবার দুপুর ৩টায় ছাত্রকে পড়াতে ওই বাড়িতে যান শিক্ষক সানোয়ার। একপর্যায়ে তিনি ওই ছাত্রের মাকে অনৈতিক প্রস্তাব দেন। এসময় তার সঙ্গে ছাত্রের মার কথা-কাটাকাটি হয়। এরপর তিনি রান্নাঘর থেকে বটিঁ নিয়ে ওই নারীর মাথায় ও পেটে আঘাত করেন।

এদিকে মাকে বাঁচাতে মেয়ে এগিয়ে আসলে তাকেও আঘাত করে পালানোর চেষ্টা করেন সানোয়ার। বিষয়টি আশেপাশে ছড়িয়ে পড়লে প্রতিবেশীরা এসে ওই শিক্ষককে আটক করে পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ এসে সানোয়ারকে আটক করে।

অন্যদিকে মুমূর্ষু অবস্থায় ছাত্রের মাকে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার শরীরে ৬২টি সেলাই দেয়া হয়েছে। আর আহত মেয়েকে ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ভেড়ামারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ শাহ্জালাল বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। ওই শিক্ষককে আটক করা হয়েছে।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ