পলিটেকনিকে অটোপাস চেয়ে হাইকোর্টে রিট

বেশ কিছুদিন থেকে ৪ দফা দাবিতে আন্দোলন করছেন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা
বেশ কিছুদিন থেকে ৪ দফা দাবিতে আন্দোলন করছেন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা  © ফাইল ফটো

দেশের পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীদের থিউরিটিক্যাল পরীক্ষাগুলোতে অটোপাস এবং প্র্যাকটিক্যাল পরীক্ষাগুলো স্থগিত চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিটটি করা হয়।

রিট আবেদনকারী শিক্ষার্থীদের আইনজীবী মো. উজ্জ্বল হোসেন দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বলেন, বিচারপতি মো. খসরুজ্জামান ও বিচারপতি মো. মাহমুদ হাসান তালুকদারের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে আগামী সপ্তাহে রিটের ওপর শুনানি হতে পারে।

এর আগে বেশ কিছুদিন থেকে চার দফা দাবিতে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের স্মারকলিপি, ক্যাম্পাসে ক্যাম্পাসে মানববন্ধন এবং সড়কে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। দীর্ঘ আন্দোলনের পরেও শিক্ষার্থীদের দাবির বিষয়ে কর্তৃপক্ষ কোন পদক্ষেপ না নেওয়ায় আজ রিটটি করা হয় বলে জানান তাদের আইনজীবী।

রিট আবেদনে বলা হয়েছে, করোনাকালীন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীদের থিউরিটিক্যাল পরীক্ষার রুটিন কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না— এ মর্মে রুল চাওয়া হয়েছে। রুল হলে তা বিচারাধীন থাকা অবস্থায় বিলম্ব ছাড়াই শিক্ষার্থীদের অটোপাস দেওয়ার আরজি করা হয়েছে রিটে।

এতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, যুগ্মসচিব, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের চেয়ারম্যান এবং পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণকসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও ব্যক্তিদের বিবাদী করা হয়েছে।

আইনজীবী মো. উজ্জ্বল হোসেন বলেন, করোনাভাইরাস পরিস্থিতির মধ্যে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীদের থিউরিটিক্যাল পরীক্ষার রুটিন দেওয়া হয়ছে। এছাড়া এ পরীক্ষা শেষ হলেই তাদের প্র্যাকটিক্যাল পরীক্ষারও রুটিন দেয়া হবে। এর বৈধতা নিয়েই রিটটি করা হয়েছে।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা তাদের প্র্যাকটিক্যাল ক্লাসে অংশ নিতে পারেনি। তাই তাদের চলমান পরীক্ষা স্থগিত করার কথা বলা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের থিউরিটিক্যাল পরীক্ষায় অটোপাস দেওয়ার বিষয়ে বলা হয়েছে। এছাড়া করোনা পরিস্থিতি চলমান থাকলে তাদের সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করার বিষয়েও রিটে উল্লেখ করা হয়েছে।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ