শিক্ষক নেই, বিনা পারিশ্রমিকে স্কুল সামলাচ্ছেন গ্রামের ১০ ব্যক্তি

শিক্ষক সংকট
দায়িত্ব পালন করছেন ১০ গ্রামবাসী  © ফাইল ছবি

পশ্চিমবঙ্গের বীরভূমের রামপুরহাট এলাকার চাঁদপাড়া উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রায় তিনশ শিক্ষার্থীর স্কুলে শিক্ষক মাত্র দুই জন। এমন পরিস্থিতিতে স্কুল বাঁচিয়ে রাখতে স্কুলের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বিনা পারিশ্রমিকে দায়িত্ব পালন করছেন গ্রামেরই ১০ জন ব্যক্তি।

বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষিকা পূর্ণিমা সরকার বলেন, ২০১২ সালে এই স্কুলটি শুরু হয়। তখন থেকেই গ্রামবাসীরা এই স্কুলের সঙ্গে জড়িত। ২০১৩ সালে আমরা এসএসসির মাধ্যমে এখানে নিয়োগ পাই। আমি ও আরও একজন ম্যাডাম এখানে জয়েন করি। তারপর থেকে আজ পর্যন্ত গ্রামবাসীরা মিলে স্কুলটি চালিয়ে যাচ্ছি। পরে একজন নিয়োগ পেয়েছিলেন। তবে তিনি এখন ছুটিতে।

আরও পড়ুন: মাধ্যমিক শিক্ষা স্তরে দক্ষতায় ভারত-শ্রীলঙ্কার চেয়ে পিছিয়ে বাংলাদেশ।

তিনি আরও বলেন, আমরা অনেক দূর থেকে আসি। চলে যাওয়ার কথা ভাবতেই পারিনি। কারণ নিজেদের হাতে এই স্কুলে ইট গেঁথেছি। এর সঙ্গে একটা আবেগ আমাদের জড়িত রয়েছে। শিক্ষিকার অভাবে হয়তো স্কুলটি বন্ধ হয়ে যাবে। ফলে এই সমস্যা সমাধান খুবই জরুরি। এটি এলাকার একমাত্র গার্লস স্কুল।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালের ২ জানুয়ারি মাত্র দুই শিক্ষিকার সাথে স্কুলটির যাত্রা শুরু হয়। তারপর একজন এলেও তিনি এখন ছুটিতে। পূর্বে এই স্কুলের ছাত্রী সংখ্যা ৫৫০ হলেও এখন তা কমে দাঁড়িয়েছে ৩০০। শিক্ষক না থাকায় শুরু থেকেই বিনা পারিশ্রমিকেই এই স্কুলে পড়াচ্ছেন ১০ গ্রামবাসী।


x