জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

আড্ডা-গ্রুপ স্ট্যাডিতে সংস্পর্শে এসেই একে একে করোনায় আক্রান্ত ৭ শিক্ষার্থী

করোনা
তবুও ক্লাস ও পরীক্ষা কার্যক্রম চলমান রেখেছে কতৃপক্ষ  © ফাইল ফটো

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের ২য় ব্যাচের (বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৩তম ব্যাচ) তিনজন শিক্ষার্থী এবং ৩য় ব্যাচের (বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪ ব্যাচ) দুইজন শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ অবস্থায়ও বিভাগের অন্যান্য ব্যাচের শিক্ষার্থীদের ক্লাস ও পরীক্ষা কার্যক্রম চলমান রেখেছে কতৃপক্ষ।

আরও পড়ুন: জবিতে এক বিভাগের ৭ শিক্ষার্থীর করোনা পজিটিভ

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ১২ তারিখ করোনায় আক্রান্ত বিভাগের ৩য় ব্যাচের শিক্ষার্থী সুশেন ও রোমেল বিভাগীয় লাইব্রেরিতে যায় এবং সিনিয়র, জুনিয়র ও বন্ধুদের সাথে আড্ডা ও পড়াশোনা (গ্রুপ স্ট্যাডি) করে। পরবর্তীতে গত ১৩ তারিখ করোনার উপসর্গ দেখা দেওয়ায় কোভিড টেস্টে তাদের রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এর আগেও বিভাগের ২য় ব্যাচের ৩ জন শিক্ষার্থীর করোনা পজিটিভ হওয়ায় শুধু ওই ব্যাচের পরীক্ষা কার্যক্রম স্থগিত করে কতৃপক্ষ। তবে করোনা পজিটিভ এর সংবাদ জানার পরেও সশরীরে পরীক্ষা নেয়া হয়েছে বিভাগের ১ম ও ৪র্থ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত, অনেকের মধ্যেই ইতিমধ্যে করোনার উপসর্গ দেখা দিয়েছে।

বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. লাইসা আহমেদ লিসার কাছে ক্লাস ও পরীক্ষা কার্যক্রম সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমরা মিটিং করছি। এছাড়াও তিনি এই বিষয়ে মোবাইল ফোনে কথা বলতে অনাগ্রহ দেখিয়ে কল কেটে দেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিভাগের এক শিক্ষার্থী জানান, বিভাগে শিক্ষার্থীদের জন্য বরাদ্দকৃত রুম মাত্র দুইটি। মানে, এই দুই রুমেই সব ব্যাচের পরীক্ষা ও ক্লাস অনুষ্ঠিত হয়। যদি এই দুই রুমেই পরীক্ষা হয়, তাহলে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি আরো বেড়ে যাবে। শিক্ষার্থীরা আমরা সকলেই এখন উদ্বিগ্ন। তবে শিক্ষার্থীরা এই স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়েই পরীক্ষা দেবে, নাকি পরীক্ষা কিছুদিন পেছানো হবে, নাকি বিকল্প কোনো পদ্ধতিতে পরীক্ষা নিবে এসব বিষয়ে এখনও পর্যন্ত কোনো দিক নির্দেশনা বিভাগ থেকে দেওয়া হয়নি। তাছাড়া বিভাগ থেকে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যের নিরাপত্তার বিষয়ে কোনরকম প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক জানান, বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত আছি। এটি নিয়ে বিভাগের চেয়ারম্যান ও ডিন মিটিং করে সিদ্ধান্ত নেবে।


মন্তব্য

x