অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষার উদ্যোগ কি ভেস্তে যাবে?

অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষার উদ্যোগ কি ভেস্তে যাবে?
  © ফাইল ফটো

করোনা প্রার্দুভাবের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা সশরীরে নেওয়ার প্রাথমিক উদ্যোগ নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। গত শনিবার উপাচার্যদের সংগঠন ‘বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদ’-এর এক ভার্চুয়াল মিটিংয়ে ভর্তি পরীক্ষা অনলাইনে নেয়ার পক্ষে মত দিয়েছিলেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য।

যদিও ইতোমধ্যেই এই সিদ্ধান্ত থেকে সরে যাওয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিনবৃন্দ। অনলাইন ভর্তি পরীক্ষার বিপক্ষে মত দিয়েছেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান।

তিনি বলেছেন,  ‘একজন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে অনুভব করি ভর্তি পরীক্ষার মত ভর্তি পরীক্ষা হতে হবে, সেটা অনলাইনে নয়।’ তার বক্তব্য, বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের শেষ মিটিংয়ে অনেক উপাচার্য আমার মতই বলেছেন। আমার মতই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মতামত দিয়েছেন। ক্যাম্পাসে এসে ছেলেমেয়েরা যেন ভর্তি পরীক্ষা দিতে পারে’।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, অনলাইনের ভর্তি পরীক্ষায় নকল কিংবা ডিজিটাল জালিয়াতি ঠেকানো চ্যালেঞ্জ হতে পারে। তাছাড়া মেধাবী হওয়া সত্ত্বেও ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে গ্রামের ও দরিদ্র পরিবারের শিক্ষার্থীরা। তাই তারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে সশরীরে পরীক্ষা নেয়াটা যৌক্তিক ভাবছেন।

এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সদস্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর বলেন, আমার কাছে ব্যক্তিগতভাব মনে হয়েছে, ফিজিক্যাল প্রেজেন্সের বাইরে পরীক্ষা নেয়ার ‍বিকল্প নেই। তার মতে, ফিজিক্যাল প্রেজেন্সের মাধ্যমে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কম ঝুঁকিতে এই পরীক্ষা নেয়া সম্ভব।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. হাসানুজ্জামান বলেন, বঙ্গবন্ধু ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের উদ্ভাবিত সফটওয়্যারে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার বিষয়ে অনেক উপাচার্য সম্মত হয়েছেন। তবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বিগত সময়ে নেয়া পরীক্ষায় ডিজিটাল জালিয়াতির আশ্রয় নেয়ার মতো নেতিবাচক ঘটনাও ঘটেছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় এক মার্কের জন্য শিক্ষার্থীদের পজিশন যেখানে অনেক দূরে চলে যায়, সেই রকম একটি সেন্সিসিটিভ পরীক্ষা অনলাইনে নেবে না, সেটা নিশ্চিত। তবে সে বিষয়ে আগামীকাল মঙ্গলবার ডিনস কমিটির এক সভায় চূড়ান্ত করা হবে।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, যদি অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষা নিতে হয় তাহলে কিভাবে এটা নেবে সে বিষয়ে একাডেমিক কাউন্সিলে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। তবে এই মুহুর্তে বলতে পারছি না অনলাইন নাকি অন ক্যাম্পাসে পরীক্ষা নেয়া হবে।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ