কোরবানি না করে অর্থ গরিবদের মধ্যে বিতরণের সুযোগ নেই

কোরবানি না করে অর্থ গরিবদের মধ্যে বিতরণের সুযোগ নেই
কোরবানি না করে অর্থ গরিবদের মধ্যে বিতরণের সুযোগ নেই  © সংগৃহীত

বায়তুল মোকাররমের ভারপ্রাপ্ত খতিব মুফতি মাওলানা মিজানুর রহমান বলেছেন, কুরবানি না করে তার অর্থ গরিবদের মধ্যে বিতরণ করে দেয়ার কোনো সুযোগ নেই। তবে যারা অন্যান্য বছর অধিক পরিমাণে কুরবানি করতেন এবার তা না করে সেই টাকা গরিবদের মধ্যে বিলিয়ে দিতে পারেন।

সম্প্রতি একটি জুমার খুতবায় এই প্রসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন। মুফতি মিজানুর রহমান বলেন, গত কিছুদিন থেকে আমরা শুনছি বিভিন্ন মিডিয়াতে কিছু আলোচনাও আসছে যে, কুরবানি করা এই পরিস্থিতিতে কতটুটা সম্ভব? করা যাবে কি যাবে না? নাকি কোনো বিকল্প কিছু করা যাবে? অনেকে এটাও বলছেন যে, কুরবানি না করে টাকা পয়সা গরিব মানুষকে দিয়ে দিলে তো আরো ভালো হয়।

মুফতি মিজান বলেন, আসলে এখানে শরিয়ত কী বলেছে? ঈদুল আজহায় পশু কুরবানি করাটা একটি সুনির্দিষ্ট ওয়াজিব বিধান। এই বিধানটি পালন করতে হয় নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ১০ থেকে ১২ জিলহজের মধ্যে। এটা ওয়াজিব।

বায়তুল মোকাররমের খতিব হাদিসের উদ্বৃতি দিয়ে বলেন, রাসুল (সা.) জিজ্ঞাসা করা হলো- ইয়া রাসুলাল্লাহ, কুরবানি জিনিসটা কী? জবাবে রাসুল (সা.) বলেন, এটা হচ্ছে তোমাদের পিতা ইব্রাহিমের (আ.) গুরুত্বপূর্ণ সুন্নাত। এই গুরুত্বপূর্ণ ওয়াজিব বিধানটি অবশ্যই আমরা পালন করবো। যার ওয়াজিব তাকে এটি পালন করতে হবে।

খতিব বলেন, অন্য সময়ে যারা অধিক পরিমাণে করতাম এমনটি যদি হয় তাহলে তারা তা না করে সেই অর্থটা বিলিয়ে দিতে পারেন। এটাও সাথে খেয়াল রাখতে হবে কুরবানির পশুর গোশত ও চামড়ায় গরিবের হক রয়েছে। এটা থেকে গরিবরা যেন বঞ্চিত হয়ে না যায়। সে কাজগুলো আঞ্জাম দিতে হবে। ফলে এটা গুরুত্বপূর্ণ বিধান এটা পালন করতে হবে।

জুমার খুতবায় বলা হয়, এখানে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, এখন করোনা চলছে। এসময়ে অন্য সময়ের চেয়ে বেশি সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে করতে হবে। সরকারিভাবে কুরবানির জন্য স্থান নির্ধারণ করে দেয়া হলে শৃঙ্খলার জন্য, পরিবেশ দূষণ মুক্ত রাখার জন্য নির্দেশ দিলে সেটাও মেনে চলা উচিত।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ