হল থেকে পরীক্ষার প্রশ্ন পাঠাল ছাত্র, উত্তর লিখে দিল শিক্ষক

হল থেকে পরীক্ষার প্রশ্ন পাঠাল ছাত্র, উত্তর লিখে দিল শিক্ষক
  © সংগৃহীত

পটুয়াখালীর গলাচিপায় আলিম পরীক্ষা কেন্দ্রের ঘটেছে এক অভিনব নকল। কক্ষে মোবাইল নিয়ে প্রবেশ করে দুই শিক্ষার্থী। পরীক্ষার শুরুতেই প্রশ্নপত্র পাওয়ার পর ওই পরীক্ষার্থীরা ফোনে ছবি তুলে পাঠিয়ে দেন শিক্ষকের কাছে। বাইরে অপেক্ষমান কল্যাণকলস নেছারিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক রফিকুল ইসলাম প্রশ্নপত্রের উত্তর লিখে তা আবার হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে পরীক্ষার্থীদের কাছে প্রেরণ করেন। 

আরও পড়ুন: চতুর্থ গণবিজ্ঞপ্তি: আবেদনের নিয়মে পরিবর্তন আনছে এনটিআরসিএ

এসময় কক্ষ পরিদর্শক দুই শিক্ষক বিষয়টি দেখেও কোনো ব্যবস্থা নেননি। অতঃপর পটুয়াখালীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. মিজানুর রহমান ও সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. সাইফুল ইসলাম ওই কক্ষে গিয়ে হাতেনাতে মোবাইল জব্দ করেন। 

এ ঘটনায় কল্যাণকলস নেছারিয়া আলিম মাদ্রাসার পরীক্ষার্থী মো. মুজাহিদুল ইসলাম, মো. সিয়াম ও গলাচিপা এন জেড মাদ্রাসার মো. শাহিন নামের এ তিনজনকে বহিষ্কার করা হয়েছে। 

নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়েছে আরেক অভিযুক্ত কল্যাণকলস নেছারিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলাম পলাতক থাকায়। অপরদিকে এক ভ্রাম্যমাণ আদালত  প্রশ্নপত্র ফাঁসে সহযোগিতা করার অভিযোগে এন জেড মাদ্রাসার সহকারী সুপার মাও. মো. মাহমুদুল হাসান ও লামনা ছালেহিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার শিক্ষক মো. আল আমিনকে কারাদণ্ড দিয়েছেন। পটুয়াখালী জেলা কারাগারে শুক্রবার সকালে প্রেরণ করা হয়েছে গ্রেফতারকৃত মাহমুদুল হাসান ও আল আমিনকে।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা যায়, হাতেনাতে মোবাইল জব্দ করার এর পর সব তথ্য বেরিয়ে আসে কক্ষ পরিদর্শক ও পরীক্ষার্থীদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে। আলিম মাদ্রাসার সহকারী সুপার মাও. মো. মাহমুদুল হাসান ও লামনা ছালেহিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার শিক্ষক মো. আল আমিনকে ভ্রাম্যমাণ আদালত এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন।

এ বিষয়ে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাইফুল ইসলাম জানান, পরীক্ষার্থী ৩ জনকে এক বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শোনিত কুমার গায়েণ জানান, পলাতক আসামি রফিকুলকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।


x

সর্বশেষ সংবাদ