আবারও দাম বাড়ছে গ্যাস, বিদ্যুৎ, সারের

আবারও দাম বাড়ছে গ্যাস, বিদ্যুৎ, সারের
গ্যাস, বিদ্যুৎ, সার  © টিডিসি ফটো

পণ্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে স্বল্প ও মধ্য আয়ের মানুষের জীবনে টানাটানির মধ্যে আগামী অর্থবছরে প্রাকৃতিক গ্যাস, সার ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর ইঙ্গিত দিলেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

করোনাভাইরাস মহামারির পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে আন্তর্জাতিক বাজারে এসব পণ্যের দাম বাড়ায় জটিল পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বলেও জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

জাতীয় সংসদে বৃহস্পতিবার বাজেট অধিবেশনে ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট বক্তৃতায় এ কথা জানান মন্ত্রী।

আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত প্রতি ব্যারেল তেলের দাম বেড়ে ১১৩ ডলার ছাড়িয়েছে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘প্রাকৃতিক গ্যাসের মূল্য বিশ্ববাজারে অন্তত ১২ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। তেল-গ্যাসের পাশাপাশি বৈশ্বিক কমোডিটি মার্কেটে কয়েকটি পণ্যের ক্ষেত্রে (যেমন গম, ভুট্টা, সানফ্লাওয়ার অয়েল ও রেয়ার আর্থ খনিজ) রাশিয়া ও ইউক্রেন গুরুত্বপূর্ণ সরবরাহকারী দেশ। ফলে আন্তর্জাতিক বাজারে এসব পণ্যেরও মূল্যবৃদ্ধি ঘটছে।’

আরও পড়ুন: শিক্ষায় বাজেট বরাদ্দ বেড়েছে ৯ হাজার কোটি টাকা

পরিসংখ্যান তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, ‘মে ২০২১-এর তুলনায় মে ২০২২ সময়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির হার প্রায় ৬৫ শতাংশ, ইউরিয়া সারের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ১১৪ শতাংশ, সয়াবিন তেলের মূল্য বৃদ্ধির হার ২৯ শতাংশ, গমের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ৮৫ শতাংশ এবং চিনির মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ১৩ শতাংশ।’

বিশ্বব্যাপী কৃষি ও খাদ্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি সামনেও অব্যাহত থাকবে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেন মন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্য বাড়ার কারণে বাংলাদেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ নয়টি পণ্যের, যেমন: জ্বালানি তেল, এলএনজি, গম, রাসায়নিক সার, পাম অয়েল, সয়াবিন তেল, কয়লা, ভুট্টা ও চাল একই পরিমাণে আমদানি করতে বাংলাদেশকে ২০২১ সালের তুলনায় ২০২২ সালে সম্ভাব্য অতিরিক্ত ব্যয় হিসেবে ৮.২ বিলিয়ন আমেরিকান ডলার পরিশোধ করতে হবে।’


x

সর্বশেষ সংবাদ