যতবার ব্যর্থ হবেন চেষ্টা চালিয়ে যাবেন— কখনই হাল ছাড়বেন না

সাক্ষাতকার
শামসুল আলম রিফাত  © টিডিসি ফটো

আমাদের সমাজে এমন কিছু মানুষ আছেন যারা দেশের জন্য নীরবে কাজ করেন, যারা পরিবর্তন আনতে বিশ্বাস করেন এবং তরুণ প্রজন্মের জন্য একটি আলোকিত ভবিষ্যত নিশ্চিত করার জন্য কাজ করেন। তেমনি একজন শামসুল আলম রিফাত। তারুণ্যের অপ্রতিরোধ্য শক্তি আর সাহসকে কাজে লাগিয়ে গড়ে তুলেছেন স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন জেনেসিস ফাউন্ডেশন। দায়িত্ব পালন করছেন সংগঠনটির সভাপতি হিসেবে। নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এই শিক্ষার্থী নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন দেশের প্রান্তিক ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জন্য। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে রিফাত তার সফলতার গল্প শুনিয়েছেন। জানিয়েছেন কিভাবে তিনি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন ইমরান ফারুক—

দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস: সমাজের জন্য আপনি কী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন? কিভাবে যুবকরা আপনার কাজ থেকে উপকৃত হতে পারে এবং কিভাবে তারা আপনাদের কাজের সাথে যোগ দিতে পারে?
শামসুল আলম রিফাত: আমি তরুণ প্রজন্মকে আমাদের দেশের উন্নয়নে স্বেচ্ছাসেবী কাজ করতে উৎসাহিত করার চেষ্টা করছি। যাতে তারা আমাদের দেশের অগ্রগতি এবং আমাদের দেশের জনগণের জন্য চিন্তা করে এবং কাজ করে। তরুণদের বিশ্বকে পরিবর্তন করার শক্তি এবং ক্ষমতা রয়েছে এবং আমি এটি খুব কমই বিশ্বাস করি। জেনেসিস ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে, আমাদের সমাজের স্বেচ্ছাসেবীরা সমাজে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। সারাদেশে আমাদের হাজার হাজার স্বেচ্ছাসেবক রয়েছে যারা ক্রমাগত পরিবর্তনের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। আমরা সত্যিই তাদের নিষ্ঠার প্রশংসা করি এবং  যারা আমাদের জন্য এবং আমাদের সাথে কাজ করেছেন তাদের জন্য আমরা বিশেষভাবে চিন্তা করি। জেনেসিস ফাউন্ডেশনে আমরা লিডারশিপ, পাবলিক স্পিকিং, ইংলিশ স্পিকিং, মেন্টাল হেলথ, সিভি রাইটিং, ইমেইল রাইটিং ইত্যাদি বিষয়ে ওয়েবিনারের ব্যবস্থা করি। এটি তাদের দক্ষতা বিকাশে এবং তাদের একাডেমিক এবং অন্যান্য সেক্টরে সাহায্য করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। যে কেউ সহজেই আমাদের সাথে সংযুক্ত হতে পারে। কেউ আমাদের সাথে যুক্ত হতে চাইলে তাকে আমাদের ফেসবুক পেজে নক করতে হবে এবং আমাদের প্রতিনিধি তাদেরকে পরবর্তী পদ্ধতির মাধ্যমে আমাদের সাথে যুক্ত হতে সাহায্য করবেন৷ 

দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস: এতদূর আসতে আপনাকে কোন বাধার সম্মুখীন হতে হয়েছে এবং কিভাবে আপনি সেই সমস্ত বাধা অতিক্রম করেছেন?
শামসুল আলম রিফাত: এই পর্যায়ে পৌঁছানোর এই যাত্রায় আমি অনেক সমস্যার সম্মুখীন হয়েছি। আমি প্রত্যক্ষ করেছি যে আমাদের তরুণ প্রজন্ম স্বেচ্ছাসেবী কাজে খুব বেশি আগ্রহী নয়। তারা প্রায়শই নাগরিক হিসাবে তাদের কর্তব্য অবহেলা করে এবং তারা এটি সম্পর্কে খুব বেশি সচেতন নয়। আমি যখন প্রথম কিছু মানুষের কাছে জেনেসিস ফাউন্ডেশনের উদ্যোগ নিয়ে কথা  বলি তখন তাদের অনেকেই এটিকে হাস্যকর এবং একটি মূর্খ ধারণা বলে মনে করেছিল। এটি কাটিয়ে উঠতে আমাকে একাধিকবার জেলা থেকে জেলা ভ্রমণ করে অনেক যুবকের কাছে গিয়ে তাদেরকে বোঝাতে হয়েছে। আমাদের সবাইকে একসাথে কাজ করতে হবে এবং সামাজিক মূল্যবোধ তৈরি করার চেষ্টা করতে হবে এটি অনেককে বোঝাতে আমাকে কষ্ট করতে হয়েছে। আমি পোস্টারের মাধ্যমে মানুষকে সচেতন করেছি, তাদের আইনি সমাধান ইত্যাদির কথা বলেছি। তবে, আমি মনে করি না যে আমার সমস্ত সমস্যা শেষ হয়েছে তবে এটি এগিয়ে চলেছে।

দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস: আপনি এমন কোন কাজ করেছেন যার জন্য আপনি গর্বিত বোধ করেন?
শামসুল আলম রিফাত: এমন কিছু যার জন্য আমি সবসময় গর্বিত বোধ করি তা হল আমার দেশের উন্নয়ন এবং আমাদের সামাজিক সমস্যাগুলো সমাধান করার জন্য আমার ক্রমাগত প্রচেষ্টা। 

দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস: এমন কোন সিদ্ধান্ত যা আপনার জীবনকে বদলে দিয়েছে?
শামসুল আলম রিফাত: যখন আমি বড় হচ্ছিলাম, তখন আমি আমাদের দেশের সামাজিক সমস্যা এবং আমাদের জনগণের দুর্ভোগ দেখেছি, তখন আমি সবসময় সেগুলির জন্য কিছু করার ইচ্ছা রেখেছিলাম। আমি যখন ১৭ বছর বয়সী ছিলাম, তখন আমি উদ্যোগ নিয়েছিলাম যে আমরা, আমাদের প্রজন্মের তরুণরা, এই পরিস্থিতিকে আরও ভাল করতে এবং সমাজের জন্য কিছু করার জন্য একসাথে কাজ করব। এই সিদ্ধান্তটি আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি যে জীবনের মূলমন্ত্রকে বদলে দিয়েছে।

দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস: আপনার জীবনের কোন গল্প যা অন্যদের অনুপ্রাণিত করতে পারে?
শামসুল আলম রিফাত: আমি মনে করি না যে আমার কাছে এমন গল্প বলার আছে তবে আমি আমাদের তরুণ প্রজন্মকে তাদের স্বপ্নের দিকে কাজ করার জন্য একটি বার্তা দিতে চাই এবং কখনই হাল ছাড়বেন না, তারা যতবারই ব্যর্থ হন না কেন কারণ তারা চেষ্টা চালিয়ে গেলে একদিন তারা হবে। তাদের কাঙ্খিত গন্তব্যে পৌঁছাতে সক্ষম। তাই কখনও হাল ছাড়বেন না।

দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস: সোনার বাংলাদেশ তৈরিতে তরুণদের ভূমিকা সম্পর্কে আপনার মতামত কী?
শামসুল আলম রিফাত: আমার দৃষ্টিকোণ থেকে, আমাদের সোনার বাংলা অর্জনের জন্য আমাদের তরুণ প্রজন্মের সবচেয়ে বেশি সক্ষমতা রয়েছে। আমাদের মাতৃভাষা বাংলা ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে পাকিস্তান থেকে আমাদের দেশ স্বাধীন করা পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি অবদান রেখেছে আমাদের তরুণরা। সুতরাং তারা যদি কিছু চায় এবং এর জন্য কাজ করে তবে তারা অবশ্যই তা অর্জন করতে পারে। তাদের শুধু সত্য এবং তাদের কর্তব্য সম্পর্কে সচেতন হতে হবে।

দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস: যুবকদের একজন সুনাগরিক হতে হবে বলে আপনি কি মনে করেন?
শামসুল আলম রিফাত: একজন দক্ষ নাগরিক হওয়ার জন্য কিছু গুণাবলী থাকতে হবে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ গুণ হল মানবিকতা। তারপর তাদের সহায়ক, সহায়ক, সৎ, সত্যবাদী ইত্যাদি হতে হবে।

দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস: আপনি কি মনে করেন অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত— নিজের ইচ্ছা নাকি পারিবারিক কিংবা সামাজিক মতামত?
শামসুল আলম রিফাত: আমরা পারিবারিক ও সামাজিক মতামতের অগ্রাধিকার ওইভাবে নির্ধারণ করতে পারি না। একজনকে অবশ্যই এই দুটির মধ্যে নিখুঁত ভারসাম্য খুঁজে বের করতে হবে। আমাদের অবশ্যই এমন সিদ্ধান্ত নিতে হবে যা আমাদের পরিবারের কাছে যথেষ্ট বিশ্বাসযোগ্য এবং আমাদের সামাজিক প্রত্যাশার বিরুদ্ধেও যাবে না।

দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস: আপনি যদি আপনার জীবন থেকে কোনো অধ্যায় মুছে ফেলার সুযোগ দিয়ে থাকেন তাহলে সেটা কী হবে?
শামসুল আলম রিফাত: আমি আমার জীবনের কোনো অধ্যায় মুছে ফেলতে চাই না। কারণ প্রতিটি অধ্যায় আমাকে একটি শিক্ষা বা সাফল্য দিয়েছে। আমি আমার জীবনের ব্যর্থতার অধ্যায়গুলো থেকেও অনেক কিছু শিখেছি যেগুলো পরবর্তীতে আমরা বিভিন্ন পর্যায়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে সহযোগিতা করেছে। তাই আমি আমার জীবনের কোনো অধ্যায়ই মুছে ফেলতে চাইনা।

দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস: আপনাকে ধন্যবাদ।
শামসুল আলম রিফাত: দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসের জন্য রইলো শুভকামনা।


x