জাবিতে পরীক্ষা নেয়ার দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

মানববন্ধন
পরীক্ষার দাবিতে মানববন্ধনরত শিক্ষার্থীরা  © টিডিসি ফটো

ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যে স্নাতক চূড়ান্ত পর্বের পরীক্ষা নেওয়ার দাবিতে মানববন্ধন করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবির) ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের সামনের সড়কে ৪৬ তম ব্যাচের (২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের) শিক্ষার্থীরা এ কর্মসূচির পালন করেন। মানববন্ধনে শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ায় ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা করেছে সরকার। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকেও একই ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ফলে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়েও সশরীরে বন্ধ রয়েছে সকল একাডেমিক কার্যক্রম। এতে বিপাকে পড়েছেন চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীরা।

আরও পড়ুন: দ্বিতীয় মেয়াদে কাউকে ভিসি নিয়োগ না দেওয়ার সুপারিশ

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বিসিএস পরীক্ষায় বসার জন্য ফেব্রুয়ারির মধ্যে তাদের চতুর্থ বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষা শেষ করার দাবি জনান। এজন্য পরবর্তী ৩ কার্যদিবসের মধ্যে সিন্ডিকেট মিটিংয়ে পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা বলেন তাঁরা।

এছাড়া একই ব্যাচের বিগত পরীক্ষাগুলোর রেজাল্ট অতিদ্রুত প্রকাশ ও করোনার বন্ধে স্থগিত হওয়া পরীক্ষাগুলো নেওয়ার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবি জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। এসময় দাবি আদায় না হলে কঠোরতর কর্মসূচির ডাক দেবেন বলেও হুঁশিয়ারি দেন।

মানববন্ধনে বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী জহির ফয়সালের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন প্রাণিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী নুর হোসেন।

আরও পড়ুন: জাবি ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করায় ২ বহিরাগত আটক

নুর হোসেন বলেন, 'অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে আমাদের সেশনের বন্ধুরা শিক্ষাজীবন শেষ করে চাকরি করছে। আর আমরা পাঁচ বছরেও অনার্স শেষ করা তো দূরের কথা এখনও তৃতীয় বর্ষের রেজাল্ট পাইনি। একই বর্ষে একাধিক ব্যাচের শিক্ষার্থী ক্লাস করছি। এই হতাশার শেষ কোথায়!'

তিনি আরো বলেন, আমরা আশা করছি ফেব্রুয়ারির মধ্যেই আমাদের পরীক্ষা সম্পন্ন করার জন্য ব্যবস্থা নেয়া হবে, আমরা বিসিএস পরীক্ষায় বসতে পারবো।

শিক্ষার্থীদের দাবির সাথে সংহতি জানিয়ে ছাত্র ইউনিয়ন বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের সভাপতি রাকিবুল রনি বলেন, এই ব্যাচের শিক্ষার্থীরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মহামারীর কারণে বারবার তাদের পরীক্ষা দেরি হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ঠিক মতো ক্লাস-পরীক্ষা নেন না। তাদের চূড়ান্ত পর্বের পরীক্ষা ও স্থগিত পরীক্ষাগুলো দ্রুত নেওয়ার হোক।

আরও পড়ুন: বিদেশে থেকেও অফিস সহকারী পদে বেতন তুলছেন শাহাদাত

মানববন্ধন শেষে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বরাবর স্মারকলিপি দেন শিক্ষার্থীরা। উপাচার্যের পক্ষে স্মারকলিপি গ্রহণ করেন ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজ।

এ বিষয়ে রহিমা কানিজ বলেন, তাদের দাবিগুলো পেয়েছি। স্মারকলিপি উপাচার্যের কাছে পাঠানো হবে।


x

সর্বশেষ সংবাদ