১৮ মাস পর খুলেছে ঢাবি গ্রন্থাগারের দ্বার

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
শিক্ষার্থীদের কঠোর স্বাস্থ্যবিধিমেনে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে প্রবেশ করা হচ্ছে  © টিডিসি ফটো

পরিচয়পত্র দেখানো ও অন্তত এক ডোজ টিকা নেওয়ার শর্তে আগামী ৫ অক্টোবর থেকে অগ্রাধিকারভিত্তিতে স্নাতক চতুর্থ বর্ষ ও স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) আবাসিক হলে উঠতে পারবেন।

এছাড়া আজ রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার, বিজ্ঞান গ্রন্থাগার ও বিভাগ-ইনস্টিটিউটের সেমিনারগুলো ওই দুই বর্ষের শিক্ষার্থীদের ব্যবহারের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে।

করোনা সংক্রমণ রোধে ২০২০ সালের ১৮ মার্চ থেকে বন্ধ ঘোষণা করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। এরপর বিশ্ববিদ্যালয় অনলইনে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করায় শিক্ষার্থীরা দীর্ঘ সময় গ্রন্থাগারগুলো ব্যবহার করার সুযোগ পাননি।

সর্বশেষ গত ১৮ সেপ্টেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম সিন্ডিকেট স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্নাতক চতুর্থ বর্ষ ও স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থীদের আবাসিক হল খুলে দেওয়ার পাশাপাশি আজ রবিবার থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগার ও বিভাগ-ইনস্টিটিউটের সেমিনার খুলে দেওয়া হয়। শিক্ষার্থীরা সকাল ১০টা থেকে স্বাস্থ্যবিধিমেনে এসব গ্রন্থাগারে প্রবেশ করতে দেখা গেছে। ছুটির দিন ব্যতীত শিক্ষার্থী সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত গ্রন্থাগার ও সেমিনার ব্যবহার করতে পারবে।

সকাল ১০টার দিকে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, শিক্ষার্থীদের কঠোর স্বাস্থ্যবিধিমেনে গ্রন্থাগারে প্রবেশ করা হচ্ছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. একেএম গোলাম রব্বানী, ঢাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নিযামুল হক ভুইয়া, বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারিক (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ড. মো. নাসিরউদ্দিন মুন্সী প্রমুখ।

চতুর্থ বর্ষ ও স্নাতকোত্তরের যেসব শিক্ষার্থী অন্তত কোভিড ১৯-এর প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছেন, তারা স্বাস্থ্যবিধিমেনে টিকা গ্রহণের কার্ড/সনদ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈধ পরিচয়পত্র সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে দেখিয়ে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার, বিজ্ঞান গ্রন্থাগার ও বিভাগীয়/ইনস্টিটিউটের সেমিনার লাইব্রেরিগুলো ব্যবহার করতে পারবেন।

মানতে হবে যেসব নির্দেশনা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগার, আবাসিক হলসহ অন্যান্য স্থাপনা শিক্ষার্থীদের জন্য খুলে দেয়াকে সামনে রেখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কোভিড-১৯ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে করণীয় সংক্রান্ত মানসম্মত পরিচালনা পদ্ধতি বা Standard Operating Procedures (SOP) প্রণয়ন করা হয়েছে। বিধিমালা অনুযায়ী গ্রন্থাগারে সকলকে বাধ্যতামূলকভাবে নিয়মিত ও সার্বক্ষণিক  সঠিক নিয়মে নাক-মুখ ঢেকে মাস্ক পরিধান করতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি পালনের জন্য সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যবিধি অনুযায়ী পরস্পরের কাছ থেকে কমপক্ষে ১ মিটার (৩ ফুট) শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। গ্রন্থাগারে দলগত আলোচনা কঠোরভাবে নিষিদ্ধ থাকবে। গ্রন্থাগারের ফটোকপি/প্রিন্ট মেশিনগুলি আপাতত ব্যবহার করা যাবে না। গ্রন্থাগার প্রাঙ্গণের অভ্যন্তরে এবং বাইরে শারীরিক দূরত্বের শর্ত মেনে চলতে হবে। গ্রন্থাগারে প্রবেশ ও বহির্গমনের জন্য আলাদা গেট ব্যবহার করতে হবে। স্বাস্থ্য সুরক্ষার নিয়ম অনুসারে ব্যবহৃত ফেসমাস্ক, ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম ডাস্টবিনে ফেলতে হবে।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ