প্রাথমিক-মাধ্যমিকের পর খুলছে বিশ্ববিদ্যালয়

বিশ্ববিদ্যালয়
শিক্ষার্থী  © ফাইল ফটো

আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে দেশের প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ো হচ্ছে। স্কুল-কলেজ খোলার পর থাপে ধাপে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খুলে দেওয়া হবে।

শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) চাঁদপুরে এক অনুষ্ঠান শেষে ১২ সেপ্টেম্বর থেকে স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

তিনি বলেন, দ্রুত সময়ের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা ছিল। এছাড়া গতকাল করোনা মোকাবিলায় গঠিত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির পক্ষ থেকে স্কুল-কলেজ খোলার পক্ষে মত দেয়া হয়েছে। সবকিছু বিবেচনায় নিয়েই ১২ সেপ্টেম্বর থেকে প্রাথমিক থেকে শুরু করে উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এদিকে স্কুল-কলেজের পর আগামী অক্টোবর থেকে থাপে ধাপে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খুলে দেওয়া হবে। বিশ্ববিদ্যালয় খোলার প্রস্তুতির কারণে অক্টোবরের আগে সেগুলো খোলা সম্ভব হবে না বলে জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সচিব ড. ফেরদৌস জামান দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় খোলার সিদ্ধান্ত আগেই জানিয়ে দেয়া হয়েছে। অক্টোবর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খোলা হবে।

তিনি আরও বলেন, ১২ সেপ্টেম্বর থেকে স্কুল-কলেজ খোলা হলেও অক্টোবরের আগে বিশ্ববিদ্যালয় খোলা সম্ভব হবে না। স্কুল-কলেজে শিক্ষার্থীরা বাড়ি থেকে গিয়ে ক্লাস করবে। আর বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষার্থীরা হল কিংবা মেসে থেকে ক্লাস করে। এক্ষেত্রে হল খোলার জন্য সময় দরকার। সেজন্য অক্টোবরের আগে বিশ্ববিদ্যালয় খোলা সম্ভব হবে না।

তিন ধাপে খুলবে বিশ্ববিদ্যালয়

বিশ্ববিদ্যালয়গুলো তিন ধাপে খোলার পরিকল্পনা করা হয়েছে। প্রথম ধাপে অনার্স চতুর্থ বর্ষ ও মাস্টার্সের শিক্ষার্থীদের হল-ক্যাম্পাসে নিয়ে আসা হবে। তাদের ক্লাস-পরীক্ষা সশরীরে নেয়া হবে। এরপর পরিস্থিতি দেখে সেকেন্ড স্টেজে তৃতীয়, দ্বিতীয় ও প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসে নিয়ে আসা হবে। সবশেষ ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের ভর্তি পরীক্ষা শেষ করে তাদের ক্যাম্পাসে আনার পরিকল্পনা করা হয়েছে। তবে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের যদি প্রস্তুতিতে ঘাটতি থাকে তবে তারা পরেও ক্যাম্পাস খুলতে পারবে। এক্ষেত্রে একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে।

এ প্রসঙ্গে ড. ফেরদৌস জামান জানান, আগামী ১৫ অক্টোবরের পর বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খুল দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট সকলের টিকা নিতে হবে। টিকা নেয়ার তথ্য ইউজিসিতে পাঠাতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা সব বিশ্ববিদ্যালয় একসাথেই খুলতে চাই। সভাতেও সেরকমই সিদ্ধান্ত হয়েছে। কোনো বিশ্ববিদ্যালয় আগে খোলা হবে আর কোনোটি পরে সেরকম না। তবে চতুর্থ বর্ষ ও মাস্টার্সের শিক্ষার্থীরা প্রায়োরিটি পাবে। এরপর ধাপে ধাপে অন্য ইয়ারের শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসে নিয়ে আসা হবে।

এদিকে ১৮ বছর কিংবা তার অধিক বয়সী শিক্ষার্থীদেত অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র আছে তারা এনআইডি দেখিয়েই টিকা নিতে পারবে। আর যাদের এনআইডি নেই তাদের তালিকা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে পাঠাতে বলা হয়েছে।

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের জন্য আলাদা বুথ: সারাদেশে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আলাদা বুথে টিকা দেয়ার কথা জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। দ্রুত সময়ের মধ্যে টিকা কার্যক্রম শেষ করতেই এই উদ্যোগ নেয়ার কথা জানান তিনি।


x