সেন্ট মার্টিন দ্বীপের জন্য বাংলাদেশকে ডিক্যাপ্রিওর অভিনন্দন

জাতীয়
সেন্ট মার্টিন দ্বীপ রক্ষায় উদ্যোগ নেওয়ায় বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানিয়েছেন হলিউড অভিনেতা লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও।  © সংগৃহীত

হলিউড অভিনেতা লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও সেন্ট মার্টিন দ্বীপের চারপাশে সুরক্ষিত সামুদ্রিক অঞ্চল গড়ে তোলার উদ্যোগ নেওয়ায় বাংলাদেশ সরকার, স্থানীয় লোকজন এবং এনজিওগুলোকে অভিনন্দন জানিয়েছেন । শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) নিজের ভেরিফাইড টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে পোস্ট করা এক টুইট বার্তায় ডিক্যাপ্রিও এই অভিনন্দন জানান।

আরও পড়ুন: আবর্জনার বিনিময়ে মিলবে বই পড়ার সুযোগ

টুইট বার্তায় তিনি জানিয়েছেন, সেন্ট মার্টিন দ্বীপের চারপাশে নতুন একটি সামুদ্রিক সুরক্ষিত অঞ্চল গড়ে তোলার জন্য বাংলাদেশ সরকার, স্থানীয় লোকজন এবং এনজিওগুলোকে অভিনন্দন। এটি জীববৈচিত্র্যের সম্প্রদায়কে রক্ষার পাশাপাশি বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল প্রাচীরের আবাসস্থলকে সুরক্ষা দেবে।

New Project - 2022-01-22T155625.466
ডিক্যাপ্রিওর টুইট বার্তার ক্রিনশট (বামে) এবং সংযুক্ত সেন্ট মার্টিনের ছবি (ডানে)। 

টুইট বার্তার সঙ্গে ওয়াইল্ডলাইফ কনজারভেশন সোসাইটি থেকে প্রাপ্ত ‘পাখির চোখে সেন্টমার্টিন’ অ্যাঙ্গেলের একটি ছবি শেয়ার করা হয়েছে। ওই টুইট ১ হাজার ২’শ বারের বেশি রিটুইট হয়েছে। বর্তমানে টুইটারে তার ফলোয়ার সংখ্যা ১ কোটি ৯৫ লাখেরও বেশি।

আরও পড়ুন: আমার প্রিয় বিশ্ববিদ্যালয়টি ভালো নেই: মুহম্মদ জাফর ইকবাল

গত মঙ্গলবার (৪ জানুয়ারি) পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক মন্ত্রণালয় সামুদ্রিক জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণের জন্য সেন্টমার্টিন দ্বীপ সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরের ১ হাজার ৭৪৩ বর্গকিলোমিটার এলাকাকে ‘সেন্ট মার্টিন মেরিন প্রটেক্টেড এরিয়া’ ঘোষণা করে। এর ফলে জাহাজের অনিয়ন্ত্রিত চলাচল, অতিরিক্ত মাছ ধরা, বর্জ্য ও রাসায়নিক পদার্থের ডাম্পিং এবং প্রবাল প্রাচীর ও জীববৈচিত্র্যের জন্য ক্ষতিকর এমন কিছু রোধ করা সম্ভব হবে। 

উল্লেখ্য, ডিক্যাপ্রিও বনভূমি সংরক্ষণে ১৯৯৮ সালে মাত্র ২৪ বছর বয়সে একটি ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠিত করেন। বনভূমি সংরক্ষণে তার ফাউন্ডেশন বিভিন্ন প্রকল্পকে সহযোগিতা প্রদান করে। এছাড়া তিনি দীর্ঘদিন ধরে সামিাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে নানা প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে বাংলাদেশের পরিবেশ নিয়ে এটিই তার প্রথম টুইট।


x

সর্বশেষ সংবাদ