শীতে ত্বকের যত্নে গোলাপ জল, জেনে নিন এর ব্যবহার

টিপস ও টিউটোরিয়াল
গোলাপ জল  © সংগৃহীত

পূর্বে রুপচর্যা কিংবা অন্য কোন কাজের জন্য মানুষ প্রকৃতির উপর নির্ভর ছিলো। কিন্তু আজকাল মানুষ প্রাকৃতির বস্তুর চেয়ে কেমিক্যালযুক্ত প্রসাধনি ব্যবহার করতে পছন্দ করে বেশি। তবে এইসব সামগ্রী ত্বকের অনেক ক্ষতি করে। তাই ঘরোয় উপায়ে ত্বকের যত্ন নিতে ব্যবহার করুন গোলাপ। 

প্রাচীনকাল থেকেই ত্বকের যত্নে গোলাপ জল ব্যবহৃত হয়ে আসছে।  শীতের আগমনের জন্য ত্বককে প্রস্তুত রাখতে গোলাপ খুবই উপকারী। সব ধরনের ত্বকের জন্যই উপকারী এই উপাদান।

গোলাপ জল: শুষ্ক ত্বকের যত্নে, ত্বককে হাইড্রেট, নরম এবং মসৃণ রাখতে সাহায্য করে গোলাপ জল। ত্বকের যে কোনও ধরনের জ্বালা অথবা লালচে ভাব কমাতেও সাহায্য করে এটি।

গোলাপ জলের ফেস প্যাক: ঘরোয়া পদ্ধতিতে গোলাপ জলের ফেস প্যাক তৈরি করে ব্যবহার করতে পারেন। এর প্রভাবে ত্বকের রুক্ষ-শুষ্কভাব দূর হবে। ত্বক মোলায়েম থাকবে। শুষ্ক ত্বকের যত্নে যেভাবে গোলাপ জলের ফেস প্যাক তৈরি করবেন -

শুধু গোলাপজল : প্রথমে ফেস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে মুছে নিন ভাল ভাবে। এর পর গোলাপ জল মুখে লাগিয়ে নিন। শুকিয়ে গেলে মুখে ময়েশ্চারাইজার লাগান। দিনে দু'বার এটি করুন।

আরও পড়ুন: ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে পাকিস্তান।

গ্লিসারিন, লেবু ও গোলাপ জল: ৩ টেবিল চামচ গ্লিসারিন, ৩ টেবিল চামচ গোলাপ জল, ১ চা চামচ লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে বোতলে ভরে নিন। এটি ফ্রিজে রাখুন। এই মিশ্রণটি মুখে ও গলায় লাগিয়ে ম্যাসাজ করুন কিছুক্ষণ। প্রতি রাতে এটি করুন।

মুলতানি মাটি, দুধ ও গোলাপ জল : ২ টেবিল চামচ মুলতানি মাটির গুঁড়ো, ১ টেবিল চামচ দুধ, ১ টেবিল চামচ গোলাপ জল একসঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। প্রথমে ফেস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে মুছে নিন। তারপর এই পেস্টটি মুখে লাগিয়ে নিন। ২০ মিনিট রাখার পর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ১-২ বার এই পেস্ট ব্যবহার করলে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়বে।

চন্দন এবং গোলাপ জল : ১ টেবিল চামচ চন্দন পাউডার, আধা চা চামচ নারকেল তেল, আধা চা চামচ আমন্ড অয়েল, ১ চা চামচ গোলাপ জল একসঙ্গে মিশিয়ে মসৃণ পেস্ট তৈরি করুন। ফেস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে মুছে নিন। তারপর এই পেস্টটি মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট রাখুন। শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। সপ্তাহে ১-২ বার এই পেস্ট ব্যবহার করলে ভালো ফল পাবেন।

এছাড়া আরও বিভিন্ন কাজে গোলাপ জল ব্যবহার করা হয়। যেমন 

টোনার হিসেবে গোলাপজল: বাজারে টোনারগুলো মূলত অ্যালকোহল এবং রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে তৈরি হয়। নিয়মির টোনারগুলো ব্যবহারে ত্বক রুক্ষ শুষ্ক হয়ে পড়ে। প্রাকৃতিক টোনার হিসেবে গোলাপ জল বেশ কার্যকর। একটি তুলোর বল ঠান্ডা গোলাপ জলে ভিজিয়ে নিন। এটি ত্বকে ব্যবহার করুন। এটি ত্বকের ছিদ্রগুলো বন্ধ করে ত্বকে একটি সুবাস নিয়ে আসে।

চোখের ফোলাভাব দূর করতে : দুই চা চামচ গোলাপ জল, তিন-চার ফোঁটা গ্লিসারিন, এবং অর্ধেকটা লেবুর রস দিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। একটি তুলোর বলে এই প্যাকটি ভিজিয়ে প্রতিরাতে ত্বকে ব্যবহার করুন। এটি ত্বকের বলিরেখা পড়া রোধ করে। চোখের নিচ ফোলাভাব দূর করে ত্বকের নমনীয়তা বৃদ্ধি করে থাকে।

আরও পড়ুন: জাবি ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদকের ফুলে যাওয়া লাশ উদ্ধার।

সানবার্ন দূর করতে: ত্বকে রোদে পোড়া দাগ দূর করতেও গোলাপ জল অনেক উপকারি। ঠান্ডা গোলাপ জল একটি তুলোতে ভিজিয়ে নিয়ে সেটি ত্বকের দাগের উপর ব্যবহার করুন। বাইরে থেকে এসে ত্বকে গোলাপ জল ব্যবহার করুন। নিয়মিত ব্যবহারে এটি ত্বকে সানবার্ন পড়া রোধ করে।

ত্বকের কালো দাগ দূর করতে: আলু কুচি করে পেস্ট করে নিন। এরপর এর সাথে গোলাপ জল মেশান। এবার এটি মুখ এবং ঘাড়ে লাগিয়ে নিন। ১৫ মিনিট পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাকটি ত্বকের কালো দাগ দূর করে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে।

ব্রন সারাতে গোলাপ জল: সমপরিমাণ গোলাপ জল এবং লেবুর রস একসাথে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি ত্বকে ব্যবহার করুন। আধা ঘন্টা অপেক্ষা করুন। আধাঘন্টা পর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এটি সপ্তাহে দুই- তিনবার ব্যবহার করুন। এটি ত্বকের ব্রন হওয়ার প্রবণতা হ্রাস করে। এছাড়া দুটি শসা ব্লেন্ড করে পেস্ট তৈরি করে নিন এরসাথে দুই টেবিল চামচ মধু এবং গোলাপ জল মেশান। এই প্যাকটি ত্বকে ব্যবহার করুন।  শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ত্বক ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে একবার এই প্যাকটি ব্যবহার করুন।

ঠোঁটের যত্ন নিতে ব্যবহার করুন গোলাপ- ঠোঁটের গোলাপি আভা ধরে রাখার জন্য আপনি এই গোলাপের পাপড়ি ব্যবহার করতে পারেন। দুটি গোলাপ থেকে পাপড়ি ছাড়িয়ে নিন। তারপর সেই পাপড়িগুলো জলে ভিজিয়ে রেখে ব্লেন্ড করে নিন। এর সঙ্গে সামান্য পরিমাণে দুধ ও মধু মিশিয়ে নিন। একটি মিশ্রণ তৈরি হবে। সেই মিশ্রণ আপনার ঠোঁটে লাগিয়ে নিন ভালো করে। ১০ মিনিট রাখুন। তারপর ঠোঁট ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত করলেই ফল চোখে পড়বে আপনার।


সর্বশেষ সংবাদ