গলা ও ঘাড়ের কালো দাগ দূর করবেন যেভাবে

টিপস ও টিউটোরিয়াল
ঘাড়ে অতিরিক্ত কালো দাগ থাকায় অনেক সময় অস্বস্তিতে ভুগতে হয়  © সংগৃহীত

ঘাড়ে অতিরিক্ত কালো দাগ থাকায় অনেক সময় অস্বস্তিতে ভুগতে হয়। গলা ও ঘাড় আমাদের দেহের একটি খোলা অংশ। বেশির ভাগ সময়েই আমাদের গলা ও ঘাড় খোলা থাকে। খোলা থাকার কারণে অনেক সময় রোদে পুড়ে কিংবা অযত্ন অবহেলার কারণে ঘাড় ও গলার সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যায়। এ দাগকে অনেকেই ময়লা ভেবে ভুল করেন। ময়লা পরিষ্কারের জন্য সাবান দিয়ে গলা ও ঘাড়ে ঘষাঘষি করেন। অতিরিক্ত ঘষাঘষির কারণে ত্বকের আর্দ্রতা কমে যায়। দাগ আরও গাঢ় হতে পারে।

অনেকেই বাজারচলতি বেশ কিছু প্রসাধনী ব্যবহার করে থাকেন ঘাড় বা গলার কালো দাগ ওঠানোর জন্য। তবে তা কালচে দাগ আরও গাঢ় করে দিতে পারে। কারণ এসব প্রসাধনীতে বিভিন্ন কেমিক্যাল মেশানো থাকে। তাই প্রাকৃতিক উপায়েই রান্নাঘরের কয়েকটি উপাদান ব্যবহার করেই ঘাড় ও গলার কালচে দাগ দূর করতে পারেন। জেনে নিন উপায়: 

ঘাড়ের ত্বক কালো হয়ে যাওয়ার কারণ

বিশেষজ্ঞদের মতে, মূলত দু’টি কারণে এই সমস্যা হতে পারে।  

* তীব্র সূর্যের আলোর কারণে ।
* আমাদের আশেপাশের পরিবেশ অর্থাৎ দূষণ।  

এর পাশাপাশি ত্বকের অন্য সমস্যাও থাকতে পারে। সেটি ভালো করে বলতে পারবেন বিশেষজ্ঞরা। যেমন:

* ওজন।
* পিসিওএস ও হাইপারথাইরয়েডিজম থাকলে।
* মোটা চেইন গলায় ব্যবহারের করলেও গলা ও ঘাড়ের ত্বক কালো হতে পারে।
* নিম্নমানের প্রসাধনীর ব্যবহার ইত্যাদি।

প্রতিকার: সমস্যাটি যদি মারাত্মক কোনো কারণে না হয়ে থাকলে ঘরোয়া কিছু জিনিস ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

অ্যালোভেরা জেল: স্বাস্থ্যের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের পাশাপাশি অ্যালোভেরা ত্বকের যত্নেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। অ্যালোভেরায় উপস্থিত খনিজ এবং ভিটামিন উপাদানসমূহ ত্বকে মেলানিন উৎপাদন সীমাবদ্ধ করে কালচে দাগ কমায়। এজন্য একটি অ্যালোভেরার পাতা কেটে জেল বের করে নিন। তারপর আপনার ঘাড়ে জেল লাগিয়ে কয়েক মিনিটের জন্য স্ক্রাব করুন। আধা ঘণ্টা এভাবে রেখে পানি দিয়ে ঘাড় ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে গলা ও ঘাড়ের কালচে দাগ দূর হবে।

লেবু ও বেসন ব্যবহার: লেবু ও বেসন মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি কুরুন। এক চা চামচ বেসনের মধ্যে আধা চা চামচ লেবুর দিতে হবে। এরপর ঘাড়ে লাগান। ১৫-২০ মিনিট রেখে দিন। শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে পরিষ্কার করে ফেলুন। পাশাপাশি লেবু ও হলুদ ঘাড়ের কালো দাগ দূর করতে সাহায্য করে। এটি খুব নিরাপদ ও ত্বকের জন্য ভালো। লেবুর রসে একটু হলুদ যোগ করে নিন। মিশিয়ে পেস্ট করে নিন। এরপর ঘাড়ে লাগান। ১৫মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন।  

আরও পড়ুন: যেসব উপায়ে শীতেও মসৃণ থাকবে ঠোঁট

বাদাম তেল: আমন্ড অয়েল ত্বকের যত্নে দারুণ কার্যকরী। বাদামের তেলে ভিটামিন ই এবং ব্লিচিং এজেন্ট আছে। উভয় উপাদানই একসঙ্গে ত্বকের রং উজ্জ্বল করে। কয়েক ফোঁটা বাদাম তেল কয়েক মিনিটের জন্য ঘাড়ে ম্যাসেজ করুন। নিয়মিত ব্যবহারে উপকার মিলবে।

টকদই: দইতে প্রাকৃতিক এনজাইম আছে, যা ত্বককে হালকা করতে সহায়তা করে। ২ টেবিল চামচ টকদই ঘাড়ে লাগান। পনের মিনিটের জন্য রেখে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

আলু: প্রাকৃতিক ব্লিচিং বৈশিষ্ট্য আছে আলুতে। যা ত্বক ও ঘাড়ের কালো দাগ হালকা করে। একটি আলু কুচি করে রস বের করে গলায় ও ঘাড়ে ব্যবহার করে ১৫ মিনিটের জন্য রেখে দিন। এরপরে ধুয়ে ফেলুন।

অ্যাপল সাইডার ভিনেগার: এটি ত্বকে জমা হওয়া মৃত কোষ দূর করতে সাহায্য করে। এজন্য ২ টেবিল চামচ আপেল সিডার ভিনেগারের সঙ্গে সামান্য পানি মিশিয়ে একটি তুলার বল ডুবিয়ে ঘাড়ে ব্যবহার করুন। কয়েক মিনিট রেখে দিন এবং তারপরে ধুয়ে ফেলুন।

শুধুমাত্র দূষণ বা রোদের কারণে ঘাড় বা গলার ত্বক কালো হলে এগুলো ব্যবহার করতে পারেন। কিন্তু শারীরিক কোনো সমস্যা হলে তখন চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে প্রতিকার করতে হবে। বিশেষ করে ঘাড় বা গলার ত্বক কালো হয়ে পড়ার সঙ্গে যদি চুলকানির সমস্যা হয়। কারণ এটি ত্বকের কোনো ধরনের সংক্রমণের কারণে হতে পারে।


সর্বশেষ সংবাদ