বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ‘অর্ধশিক্ষিত’ মনে করেন অধ্যাপক আনোয়ারউল্লাহ

সেমিনার
ভার্চুয়াল সেমিনারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. আনোয়ারউল্লাহ চৌধুরী  © সংগৃহীত

শৈশব থেকেই ইংরেজি শিক্ষার প্রতি গুরুত্বারোপের প্রয়োজন মনে করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. আনোয়ারউল্লাহ চৌধুরী। তার মতে, প্রচলিত শিক্ষাব্যবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয়ে যেসব শিক্ষার্থী আসেন, তারা অর্ধশিক্ষিত। তাদের ইংরেজি শিক্ষার কোনো জ্ঞানই নেই।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বিএনপি ও জামায়াত-সমর্থিত শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দল আয়োজিত এক ভার্চুয়াল সেমিনারে এ অভিমত ব্যক্ত করেন তিনি।

মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) ‘শতবর্ষের অভিযাত্রায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়’ শীর্ষক ভার্চুয়াল সেমিনারটি অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারের শুরুতে ‘ঢাবির শিক্ষা ও গবেষণার শতবর্ষ অর্জন’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ছিদ্দিকুর রহমান খান।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন সাদা দলের আহ্বায়ক অধ্যাপক মো. লুৎফর রহমান। দলের সদস্য সচিব অধ্যাপক ড. মো. মহিউদ্দিনের সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ ফ ম ইউসুফ হায়দার, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. দিল রওশন জিন্নাত আরা নাজনীন, মৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আখতার হোসেন খান প্রমুখ।

সেমিনারে সাবেক অধ্যাপক ড. আনোয়ারউল্লাহ চৌধুরী বলেন, আমাদের জাতীয় সিদ্ধান্ত শিক্ষার মাধ্যম হবে বাংলায়। কিন্তু বাংলায় উচ্চশিক্ষা দিতে হলে যে পরিমাণ বাংলা রেফারেন্স বই দরকার, আমাদের সে পরিমাণ বই নেই। এটি আমাদের ব্যর্থতা।

তিনি বলেন, আমার প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা থেকে বলছি, এক শিক্ষককের কাছে জানতে চাইলাম, ‘তুমি ক্লাসে আবোল তাবোল কথা বলো, পড়ে ক্লাসে যাও না কেন?’ উত্তরে সে আমাকে বলেছিল, ‘স্যার, ইংরেজি বই পড়ে আমি কিছু বুঝতে পারি না।

ক্ষোভ প্রকাশ করে আনোয়ারউল্লাহ চৌধুরী বলেন, আমাদের শিক্ষাব্যবস্থায় যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র পাই, তখন তারা অর্ধশিক্ষিত। এদের ইংরেজি শিক্ষার কোনো জ্ঞানই নেই। শিক্ষকরাই ইংরেজি বই বোঝেন না, ছাত্ররা কী বুঝবে! এ জন্য আমাদের শিক্ষার মান নিম্নগামী। আমরা অর্ধশিক্ষিত গ্র্যাজুয়েট তৈরি করছি৷ আমরা পরিকল্পিতভাবেই আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিচ্ছি।

সাবেক এই উপাচার্য বলেন, আমি তিনটা শিক্ষা কমিশনের সদস্য ছিলাম। অনেক রিপোর্ট তৈরি করেছি। এসব রিপোর্টে অনেক সুপারিশ উল্লেখ থাকে। তার মধ্যে একটা সুপারিশ ছিল ক্লাস থ্রি থেকে ইংরেজি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা। কিন্তু শিক্ষা কমিশনের কোনো রিপোর্ট বাস্তবায়ন হয় না; এটাও হয়নি।

গবেষণা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে সব গবেষণার জন্য বরাদ্দের প্রয়োজন নেই। অনেক মৌলিক গবেষণা আছে, যার জন্য বরাদ্দ নয়, সাধক হতে হবে; সাধনা করতে হবে। সে সাধনা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নেই, এ কথা স্বীকার করতে হবে।

সেমিনারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ইতিহাস নিয়ে আলোচনা হয়। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-ছাত্রদের দলীয় লেজুড়বৃত্তি, রাজনৈতিক বিবেচনায় শিক্ষক নিয়োগ, বাজেট-সংকটসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সমস্যার বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়।

অধ্যাপক আনোয়ারউল্লাহ চৌধুরী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়র ২৪তম উপাচার্য ছিলেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে নৃ-বিজ্ঞান বিভাগ প্রতিষ্ঠা করেন এবং তার প্রথম বিভাগীয় প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০২ সালের ২৩ জুলাই রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শামসুন্নাহার হলের পুলিশী হামলার ঘটনায় ছাত্র-ছাত্রীরা তাকে দোষী সাব্যস্ত করে তার পদত্যাগ দাবী করে। পরে অধ্যাপক আনোয়ারউল্লাহ চৌধুরীর পদত্যাগের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ছাত্র-ছাত্রীদের সমাগম ঘটে। ফলশ্রুতিতে, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার অনুরোধে তিনি ২০০২ সালের ৩১ জুলাই পদত্যাগ করেন। এরপর তিনি বাহারাইনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদুতের দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্ততে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরে আসেন।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ

x