রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

ছাত্রলীগ নেতা শামীম ওসমানের বিছানাপত্র বের করে দিলেন হল প্রাধ্যক্ষ

রাবি
বিছানাপত্র বের করে দেওয়া হচ্ছে  © টিডিসি ফটো

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) আবাসিক হলে অবৈধভাবে এক অনাবাসিক শিক্ষার্থীকে সিটে তুলতে হল গেটে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন এক ছাত্রলীগ নেতা। ক্ষুব্ধ হয়ে ওই নেতার বিছানাপত্র বের করে দিলেন হল প্রাধ্যক্ষ। বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সোহরাওয়ার্দী হলে এ ঘটনা ঘটে।
 
ছাত্রলীগ নেতা ও ওই হলের অনাবাসিক এ ছাত্রের নাম শামীম ওসমান। তিনি সোহরাওয়ার্দী হল শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি এবং ফলিত গণিত বিভাগের শিক্ষার্থী। অবৈধভাবে সিটে থাকা অন্য শিক্ষার্থী একই বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী শফিউল্লাহ।

হল সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে হলে থাকা অনাবাসিক শিক্ষার্থী শফিউল্লাহকে ৪৩০ নম্বর কক্ষ থেকে নামিয়ে দেন হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক জাহাঙ্গীর হোসেন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে হল গেটে তালা দেয় শামীম উসমান। পরে হলের সাধারণ শিক্ষার্থীরা হলের তালা ভেঙে ফেলে। পরে ঘটনাস্থলে এসে অনাবাসিক শিক্ষার্থী হওয়া সত্বেও হল গেটে তালা দিয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ভোগান্তিতে ফেলার বিষয়ে শামীম উসমানের কাছে কৈফিয়ত চান এবং ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চেয়ে এমন ঘটনা যাতে আর না ঘটে সে মর্মে শামীম উসমানের কাছে লিখিত চান হল প্রাধ্যক্ষ। কিন্তু লিখিত না দিয়েই চলে যান শামীম উসমান। 

হলের অনাবাসিক শিক্ষার্থী হয়েও তার এমন আচরণে ক্ষুব্ধ হয়ে কর্মকর্তা দিয়ে শামীম উসমানের বিছানাপত্র ২২০ নম্বর কক্ষ নামিয়ে দেন প্রাধ্যক্ষ। এঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রাধ্যক্ষের কক্ষের সামনে অবস্থান নেন হল শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। পরে প্রাধ্যক্ষকের সঙ্গে বৈঠক করে অমীমাংসিতভাবে চলে যান ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

জানতে চাইলে অভিযুক্ত শামীম উসমান বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমি পরে কথা বলব।

হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, শামীম উসমান হলের অনাবাসিক শিক্ষার্থী হওয়া সত্বেও এর আগে গত রমজান মাসের দ্বিতীয় রোযার দিনে ডাইনিংয়ের পাঁচটি প্লেট ভেঙ্গেছিল। আজ আবার হল গেটে তালা দিল। আমি তাকে ভুল স্বীকার করে লিখিত আবেদন দিতে বলেছিলাম, কিন্তু সে দেয়নি। সেজন্য তার বিছানপত্র আমি নামিয়ে রেখেছি। এ বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।


x

সর্বশেষ সংবাদ