পুলিশ দেখেই কর্মসূচি সংক্ষিপ্ত করে স্থান ত্যাগ করলো ছাত্রদল

অনশন
ছাত্রদলের প্রতীকী অনশন  © সংগৃহীত

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ও দাবির প্রতি সংহতি জানিয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে প্রতীকী অনশনে বসেছিল জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল। বিকাল তিনটা পর্যন্ত অনশন করার কথা থাকলেও দুপুর ১২টার দিকে পুলিশের উপস্থিতি দেখে তারা কর্মসূচি সংক্ষিপ্ত করে স্থান ত্যাগ করে বলে অভিযোগ উঠেছে। আজ মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) সকাল ১০টা থেকে তাদের প্রতীকী অনশন কর্মসূচি শুরু হয়। 

আরও পড়ুন: ঢাকায় শাবিপ্রবির সাবেক ৫ শিক্ষার্থী আটক, নেওয়া হচ্ছে সিলেটে 

অনশনে অংশ নেয়া বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সকাল থেকে শহীদ মিনারে ছাত্রদলের অনশন কর্মসূচি চলছিল। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কয়েক প্লাটুন পুলিশ জলকামান, প্রিজন ভ্যান নিয়ে শহীদ মিনার এলাকায় আসে। পুলিশের পক্ষ থেকে কর্মসূচি সংক্ষিপ্ত করার কথা জানানো হয়। এর পরপরই নেতাকর্মীরা স্থান ত্যাগ করে।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদলের আহ্বায়ক রাকিবুল ইসলাম রাকিব বলেন, আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে শাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সকাল ৯ টা থেকে প্রতীকী অনশন শুরু করি। বিকাল ৩টা পর্যন্ত আমাদের অনশন কর্মসূচি ছিল। কিন্তু পুলিশ দশটা থেকে আমাদের বাঁধা দিতে থাকে। তাদের মারমুখী মনোভাবের কারণে আমরা অনশন পৌনে ১২টায় শেষ করে শহীদ মিনার ত্যাগ করি।

আরও পড়ুন: প্রভোস্ট পদত্যাগের আন্দোলন যেভাবে ভিসি বিরোধী আন্দোলনে রূপ নিলো

ছাত্রদল সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন বলেন, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দাবির প্রতি সংহতি জানিয়ে আমরা অনশন কর্মসূচি করছিলাম। পুলিশের বাধার কারণে তা নির্ধারিত সময়ের আগে শেষ করতে হয়েছে। তিনি বলেন, ছাত্রদল মনে করে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের দাবি যৌক্তিক। আমরা দাবি জানাচ্ছি অবিলম্বে তাদের দাবি মেনে নেয়া হোক এবং বিশ্ববিদ্যালয়টিতে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনা হোক।

এর আগে অনশনে শাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে ভিসি ফরিদ উদ্দীন আহমেদের অপসারণ ও শিক্ষার্থীদের নামে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানায় ছাত্রদল।

আরও পড়ুন: অর্থ দেয়ার অভিযোগে সাবেক দুই শিক্ষার্থীকে আটক

অনশনে ভিসি পদত্যাগ না করা পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়ে ছাত্রদল সভাপতি বলেন, দ্রুত সময়ের মধ্যে আমরা এই অমানবিক ভিসির পদত্যাগ দাবি করছি। এই ভিসি পদত্যাগ না করা পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন জারি থাকবে।

এদিকে বাধা দেয়ার বিষয়টি সত্য নয় বলে পুলিশের শাহবাগ থানার ওসি মওদুদ হাওলাদার বলেন, কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধির কারণে আমরা তাদেরকে কর্মসূচি শেষ করতে অনুরোধ করি। তারা সেটি মেনে শেষ করে চলে গিয়েছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদল কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সিনিয়র সহ-সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, সহ-সভাপতি মামুন খান, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, সিনিয়র যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রহমান আমিন, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার আহ্বায়ক রাকিবুল ইসলাম রাকিব, সদস্য সচিব আমান উল্লাহ আমানসহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল ইউনিট এবং ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন ইউনিটের নেতৃবৃন্দ।


x

সর্বশেষ সংবাদ