ব্যাটিং ব্যর্থতায় লজ্জার রেকর্ড গড়ে ফলোঅনে বাংলাদেশ

ক্রিকেট
ফলোঅনে বাংলাদেশ  © সংগৃহীত

ফলোঅন এড়াতে করতে হতো মাত্র ১০১ রান। স্কোর বোর্ডে ৩০০ রান তুলে পাকিস্তান ইনিংস ঘোষণা করার পর নিজেদের প্রথম ইনিংস শুরু করতে নেমে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে টাইগাররা। কিন্তু অভিজ্ঞ সাকিব আল হাসান ব্যাটিংয়ে থাকলেও ফলোঅন এড়াতে পারেনি বাংলাদেশ, গুটিয়ে গেছে মাত্র ৮৭ রানে।

দলীয় স্কোর ৭১ তুলতেই ৭ ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে বসে স্বাগতিকরা। এতে ফলোঅনের শঙ্কা মাথাচাড়া দেয়। ফলোঅন এড়াতে বাংলাদেশে প্রয়োজন ছিল ১০১ রান। কিন্তু অভিজ্ঞ সাকিব আল হাসান ব্যাটিংয়ে থাকলেও ফলোঅন এড়াতে পারেনি বাংলাদেশ, গুটিয়ে গেছে মাত্র ৮৭ রানে।

ম্যাচের পরিস্থিতি যেদিকে গড়িয়েছে, ফলোঅনে পড়া বাংলাদেশ দল এখন ইনিংস হারের শঙ্কায়। শেষদিনের প্রথম সেশনের শুরুতে ৮৭ রানে অলআউট টাইগাররা। পাকিস্তান থেকে এখনো পিছিয়ে ২১৩ রানে।

আজ টেস্টের পঞ্চম দিনের সকালে ফলোঅন এড়াতে বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ২৫ রান। হাতে ৩ উইকেট। তাইজুল ইসলামকে নিয়ে ব্যাটিংয়ে ছিলেন সাকিব আল হাসান। তবুও শেষরক্ষা হলো না। ব্যক্তিগত ২৩ রান নিয়ে পঞ্চম দিনের খেলা শুরু করা সাকিব শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হন ৩৩ রান করে। এতে আজ ১১ রান তুলতে পারে বাংলাদেশ। গুটিয়ে যায় ৮৭ রানেই। ১৪ রানের আক্ষেপে পড়তো হলো ফলোঅনে।

ঢাকা টেস্টের প্রথম ৪ দিন প্রকৃতি বেজার থাকলেও আজ সকাল থেকেই সূর্যের মুখে হাসি। লাভ হলো না তাতে, এই ফায়দাটা নিতে পারলেন না স্বাগতিক ব্যাটসম্যানরা। শেষদিনে সকালে পাকিস্তানি অধিনায়ক বাবর আজম বল তুলে দিলেন পেসার শাহিন আফ্রিদির হাতে। দিনের শুরুর ওভারে অবশ্য সাফল্য এনে দিতে পারলেন না তিনি।

আগের দিনে বাংলাদেশ দলকে ধসিয়ে দেওয়া সাজিদ খান বাজিমাত করেন ইনিংসের দ্বিতীয় এবং নিজের প্রথম ওভারেই। সাজিদের ঝুলিয়ে দেওয়া লেংথ বল টার্ন করে করে উইথ দা আর্ম ভেতরে ঢোকে একটু। তাইজুলের ডিফেন্সকে ফাঁকি দিয়ে বল লাগে প্যাডে। আবেদনে আঙুল তুলে দেন আম্পায়ার। চ্যালেঞ্জ জানিয়েও বাঁচতে পারেননি তাইজুল। ফেরেন শূন্য হাতে।

পরের ওভারেই বাজিমাত শাহিনের। এবার শিকার খালেদ আহমেদ। রাউন্ড দা উইকেটে দুর্দান্ত ইয়র্কার করেন বাঁহাতি ফাস্ট বোলার। ব্যাট পেতে দিয়েও বল ঠেকাতে পারেননি খালেদ। রানে খাতা খুলতে পারেননি তিনি। সাকিবের ব্যাটে ফলোঅন এড়ানোর আশা জাগলেও শেষমেশ লাভ হলো না। ২৩ রানে ব্যাট করতে নামা সাকিব আজ যোগ করেন আর ১০ রান। সাজিদের অষ্টম শিকারে পরিণত হলে বাংলাদেশ গুটিয়ে যায় মাত্র ৮৭ রানে।


মন্তব্য

x