শিক্ষকের অবহেলায় এসএসসি পরীক্ষায় বসা হলো না মেহেরুনের

শিক্ষকের অবহেলায় এসএসসি পরীক্ষায় বসা হলো না মেহেরুনের
  © প্রতীকী ছবি

শিক্ষকের অবহেলায় ফরম ফিলাপের টাকা জমা দিয়েও এসএসসি পরীক্ষায় বসতে পারছে না ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার সাতৈর উচ্চ বিদ্যালয়ের এক ছাত্রী। ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর নাম মেহেরুন নেছা। 

জানা যায়, দশম শ্রেণির ছাত্রী মেহেরুন নেছা খরসূতি চন্দ্র কিশোর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বদলি হয়ে ২০২০ সালের ২০ মার্চ সাতৈর উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়। ভর্তির সময় সাতৈর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা তার কাছ থেকে ভর্তির টাকা নেন। স্কুল খোলার পর সেখানে নিয়মিত ক্লাসও করেন মেহেরুন।

এরপর ২০২১ সালের এসএসসির ফরম পূরণের সময় ওই ছাত্রীর প্রয়োজনীয় তথ্য দেন। এসময় তার কাছ থেকে  ১৯৫০ টাকাও নেওয়া হয়। কিন্তু পরীক্ষা শুরুর আগের দিন স্কুলে প্রবেশপত্র আনতে গেলে শিক্ষকরা জানান, তার ফরম ফিলাপ হয়নি। তাই এ বছর সে পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে না।

এ বিষয়ে মেহেরুনের অভিভাবক বলেন, স্কুল কর্তৃপক্ষ ফরম ফিলাপের জন্য ১৯৫০ টাকা নিয়ে আমাদের রশিদ দেন। কিন্তু পরীক্ষার আগের দিন তারা জানান মেহেরুনের ফরম ফিলাপ হয়নি। কারণ তার স্কুল বদলি কার্যকর হয়নি। যদি বদলি কার্যকরই না হবে তাহলে টাকা নিয়েছিল কেন? কেনই বা আগে জানাননি শিক্ষকরা? 

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. ইয়াকুব আলী চৌধুরী বলেন, মেহেরুন নেছা নামে যে ছাত্রী এসএসসি পরীক্ষা থেকে বাদ পড়েছে তার ফরম ফিলাপ হয়নি। তার কাছ থেকে ফরমফিলাপের টাকা নেওয়া হয়েছিল, কিন্তু তার বদলি কার্যকর না হওয়ার এ সমস্যা হয়েছে। 

আর সাতৈর উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি সৈয়দ সাহিদুর রহমান সজল এই ঘটনার জন্য শিক্ষকদের অবহেলাকে দায়ী করেন। তিনি বলেন, আমি সভাপতি হিসেবে অবহেলা করা শিক্ষকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।

এ ঘটনায় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রহিমও দায়ী করেছেন শিক্ষকের অবহেলাকে। তিনি বলেন, শিক্ষকদের অবহেলায় ওই ছাত্রীর ফরম ফিলাপ হয়নি। যে কারণে এ বছর সে পরীক্ষা দিতে পারলো না। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। 


মন্তব্য

x