এসএসসি: পড়াশোনায় মনোযোগ বাড়ানোর ৬ কৌশল

এসএসসি: পড়াশোনায় মনোযোগ বাড়ানোর ৬ কৌশল
  © প্রতীকি ছবি

করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে দেশে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় পড়াশোনা থেকে অনেকটা দূরেই থাকতে হয়েছে বেশিরভাগ শিক্ষার্থীকে। তবে বর্তমানে ভাইরাসটির আক্রান্তের হার নেমে আসায় এবং টিকাদান কর্মসূচি শুরু হওয়ার কারণে আশা করা হচ্ছে যে, শিগগিরই আবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হতে পারে।

বুধবার (১০ ফেব্রুয়ারি) এক অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে বলেছেন, যখন স্বাস্থ্য ঝুঁকি কম মনে হবে, তখনই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হবে।

সে লক্ষ্যে নতুন করে সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে, এসএসসির জন্য ৬০ কর্মদিবস ক্লাস এবং এইচএসসির জন্য ৮৪ কর্মদিবস ক্লাস ধরে হিসেব করা হয়েছে। যদি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে দেরি হয় তাহলে পরীক্ষাও একটু পরে নেয়া হবে বলেও জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

এর আগে এসএসসি পরীক্ষার্থীরা অটোপাসের দাবিতে আন্দোলন করলেও শিক্ষামন্ত্রী বলেন যে, অটোপাসের কোন সুযোগ নেই।

এমন অবস্থায় দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার কারণে পড়াশোনায় যে ক্ষতি হয়েছে সেটি কিভাবে পুষিয়ে নেয়া যায় তা নিয়ে আলাদা মত দিয়েছেন শিক্ষাবিদরা। আর মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই সময়ে পড়াশোনা শুরু করার পর মনোযোগ বাড়াতেও কিছু পদক্ষেপ নিতে হবে।

১) ঘাবড়ে না গিয়ে শুরু করুন
মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞ মেখলা সরকার বলেন, অনেক দিন ধরে পড়াশোনার সাথে সম্পর্ক না থাকলে শুরুর দিকে পড়ার টেবিলে বসতেই ভাল লাগবে না। আবার অনেক সময় মনে হবে যে, পড়তে চাইলেও ইচ্ছা করছে না। ‘স্বাভাবিকভাবেই যেকোন চ্যালেঞ্জিং জিনিস আমাদের মোকাবেলা করতে ইচ্ছা করে না।’

এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের উচিত হবে প্রতিদিন নিয়ম করে কিছু সময়ের জন্য হলেও পড়তে বসতে হবে। এসময় গুরুতর ধরণের পড়াশুনা করতে হবে বিষয়টা সেভাবে না দেখে বরং শুধু বসার জন্যই বসা দরকার।

মেখলা বলেন, ‘এ সময় সে হয়তো বই গোছাতে পারে, পড়ার টেবিলটা গোছাতে পারে। বই খাতাগুলো নাড়াচাড়া করা।’ অর্থাৎ এসময় টেবিলে পড়তে বসার অভ্যাসটা তৈরি করতে হবে।

২) সহজ বিষয় দিয়ে শুরু করুন
টেবিলে পড়তে বসতে অভ্যস্ত হয়ে গেলে এর পরের ধাপ হবে, সবচেয়ে সহজ বিষয়গুলো পড়তে শুরু করা। যে বিষয়টি পড়তে শিক্ষার্থীর সবচেয়ে বেশি ভাল লাগে সেটিই অল্প অল্প করে পড়তে হবে।

মেখলা সরকার বলেন, অনেক সময় দেখা যায় যে, অনেক শিক্ষার্থী ছবি আঁকতে পছন্দ করে। সেক্ষেত্রে ছবি আঁকা দিয়েই সে শুরু করতে পারে।

‘অনেক সাবজেক্ট থাকে যেখানে খুব বেশি মাথা খাটাতে হয় না, সেটা পড়তে পারে।’

এছাড়া অনেক সময় যে অধ্যায় আগে থেকেই পড়া আছে সেটি দিয়েই শুরু করা যেতে পারে। এটি দিয়ে শুরু করলে যখন ওই বিষয়ে শিক্ষার্থীর একটু দখল আসবে তখন তার মধ্যে ধীরে ধীরে আত্মবিশ্বাস তৈরি হবে। ‘কনফিডেন্সটা তৈরি হলেই আস্তে আস্তে তার ভয়টা কেটে যাবে’- বলেন তিনি।

৩) শব্দ করে পড়ুন
কিছুদিন বন্ধ থাকার পর হঠাৎ করে পড়াাশোনা শুরু করলে অনেক শিক্ষার্থীর মধ্যেই মনোযোগ না থাকার সমস্যা তৈরি হয়। এমনকি অনেকে অভিযোগ করেন যে, তারা পড়া শুরু করলেও সেটি মনে রাখতে পারেন না।

‘অল্প-স্বল্প ভুলে যাওয়া কোন সমস্যা না। নিয়মিত পড়াশোনা চালিয়ে গেলে এটা চলে যায়।’

এতে উদ্বিগ্ন হওয়া যাবে না। বরং এক্ষেত্রে শব্দ করে জোরে পড়লে মনোযোগ বাড়ে বলে জানান মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞ মেখলা সরকার। ‘যখন আমরা শব্দ করে পড়ি তখন সেটা মাথায় ঢুকতে সাহায্য করে’।

৪) বার বার পড়ুন
আগের দিন যে পড়াটা শেষ হয়েছে সেটি মনে রাখার জন্য সেই পড়াটা আবার একবার পড়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

মেখলা সরকার বলেন, অনেক শিক্ষার্থী অভিযোগ করেন যে, আগের দিনের পড়ার ৫০% বা ৯০%ই তার মনে নেই। এটা স্বাভাবিক।

আর তাই মনে রাখতে হলে ওই পড়াটা আরেকবার পড়ার বিকল্প নেই বলে জানান তিনি।

‘এভাবে চেষ্টা করতে থাকলে কিছু দিন পর যখন সে দেখবে যে সেটা তার মাথায় ঢুকে গেছে তখন তার মধ্যে একটা আত্মবিশ্বাস তৈরি হবে এবং সে নতুন করে পড়তে আগ্রহ পাবে।’

যে জিনিস সম্পর্কে মানুষ জানে না সেটার প্রতি প্রথমেই আগ্রহ তৈরি হয় না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

৫) শিক্ষকদের এগিয়ে আসতে হবে
স্কুল বন্ধ থাকার কারণে অনেক শিক্ষার্থীই আগের ক্লাসের সিলেবাস ঠিকভাবে শেষ করতে পারেনি। সেক্ষেত্রে শিক্ষকের জানা থাকে যে শিক্ষার্থীরা কোন সিলেবাসটি পড়েছে আর কোনটি পড়েনি।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের চেয়ারম্যান ড. সৈয়দা তাহমিনা আক্তার বলেন, এ ক্ষেত্রে শিক্ষকদের এগিয়ে আসতে হবে।

শিক্ষার্থীরা আগের সিলেবাসের যে বিষয়গুলো বুঝতে পারছে না সেগুলো আগে বুঝিয়ে তারপর নতুন সিলেবাস পড়ানো শুরু করতে হবে।

৬) সম্ভব হলে আগের সিলেবাস শেষ করুন
ড. সৈয়দা তাহমিনা আক্তার বলেন, যেহেতু স্কুল বন্ধ ছিল তাই অনেকেই আগের ক্লাসের পড়া শেষ করতে পারেনি।

তার আগেই নতুন ক্লাসে উঠে গেছে। তবে এক্ষেত্রে আগের সিলেবাস একেবারে না পড়া থাকলে নতুন ক্লাসের পড়া কঠিন মনে হতে পারে।

সেক্ষেত্রে বাবা-মায়েরা চাইলে সন্তানদের শিক্ষক দিয়ে কিংবা নিজেরা উদ্যোগী হয়ে নতুন ক্লাসের পড়ার ফাঁকে ফাঁকে আগের সিলেবাসটিও শেষ করার চেষ্টা করতে পারেন।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ