হামফ্রে ফেলোশিপ নিয়ে পড়ুন যুক্তরাষ্ট্রে, আবেদন শেষ ৭ জুলাই

হামফ্রে ফেলোশিপ নিয়ে পড়ুন যুক্তরাষ্ট্রে, আবেদন শেষ ৭ জুলাই
হুবার্ট এইচ. হামফ্রে ফেলোশিপ  © সংগৃহীত

স্নাতক শেষ করা নেতৃত্বের গুণাবলী আছে এমন শিক্ষার্থীদের ফেলোশিপ দিবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। পাঁচ বছর কাজের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন যে কোনো দেশের শিক্ষার্থীরা এ ফেলোশিপের জন্য আবেদন করতে পারবেন। আগামী ৭ জুলাই পর্ন্ত আবেদন করা যাবে। 

পড়ুন স্নাতকোত্তরে স্কলারশিপ দেবে অস্ট্রেলিয়ার মোনাশ বিশ্ববিদ্যালয়

‘হুবার্ট এইচ. হামফ্রে ফেলোশিপ’ এর আওতায় শিক্ষার্থীরা এ ফেলোশিপের মাধ্যমে সম্পূর্ণ বিনা খরচে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নের সুযোগ পাবেন। শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি, জীবনযাত্রা ভাতা, সেটলিং ভাতা, স্বাস্থ্য বীমা, বই ও কম্পিউটার ভাতাসহ নানান ধরনের সুযোগ-সুবিধা প্রদান করা হবে।

শিক্ষার্থীদের অর্থনৈতিক উন্নয়ন, পাবলিক পলিসি অ্যানালাইসিস, পাবলিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, প্রযুক্তি নীতি ও ব্যবস্থাপনা, যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা, ধর্মীয় স্বাধীনতা, আইন ও মানবাধিকার, প্রাকৃতিক সম্পদ, পরিবেশ নীতি ও জলবায়ু পরিবর্তন, নগর ও আঞ্চলিক পরিকল্পনা, সংক্রামক এবং সংক্রামক রোগ, জনস্বাস্থ্য নীতি ও ব্যবস্থাপনা, শিক্ষা প্রশাসন, পরিকল্পনা ও নীতি, উচ্চ শিক্ষা প্রশাসন এবং ইংরেজিসহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। আগ্রহী আবেদনকারীরা উপরোল্লেখিত বিষয়গুলোর ক্ষেত্রের যেকোনো একটিতে আবেদন করতে পারবেন। একজন আবেদনকারীর অবশ্যই সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ন্যূনতম পাঁচ বছরের পূর্ণ-সময়ের পেশাদার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে হামফ্রে ফেলোশিপ প্রোগ্রাম আন্তর্জাতিক ব্যক্তিদের জন্য একটি সর্বাধিক প্রতীক্ষিত সম্পূর্ণ অর্থায়িত ফেলোশিপ। হুবার্ট এইচ. হামফ্রে ফেলোশিপ প্রোগ্রাম হল মার্কিন সরকারের একটি মর্যাদাপূর্ণ ফুলব্রাইট প্রোগ্রাম যা দক্ষ, তরুণদের অন্তর্ভুক্ত করে। এছাড়া ক্যারিয়ারের মাঝামাঝি অবস্থানে থাকা পেশাদারদের এক বছরের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নেতৃত্বের বিকাশে সহযোগিতা করবে। প্রয়াত সিনেটর এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট হুবার্ট এইচ. হামফ্রের স্মৃতি এবং কৃতিত্বকে সম্মান জানাতে ১৯৭৮ সালে হামফ্রে প্রোগ্রাম চালু করা হয়েছিল। প্রোগ্রামটি চালু হওয়ার পর থেকে বাংলাদেশ সরকারের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মিসেস মাহবুবা পান্না, বাংলাদেশ চক্ষু হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. নিয়াজ আবদুর রহমান এবং ভিট্রিও রেটিনা সার্জন এলিটা করিম সহ প্রায় ১০০ জন বাংলাদেশি এই ফেলোশিপে অংশগ্রহণ করেছেন।

আরও পড়ুন ফুল-ফ্রি স্কলারশিপ নিয়ে পিএইচডি করুন সিঙ্গাপুরে

সুযোগ-সুবিধাসমূহ:

* সম্পূর্ণ টিউশন ফি প্রদান করা হবে।
* জীবনযাত্রা ভাতা।
* এককালীন সেটলিং ভাতা।
* ফেলোরা বিনামূল্যে একাডেমিক ইংরেজি ভাষার কোচিং পাবেন।
* স্বাস্থ্য বীমা প্রদান করা হবে।
*  বই ও কম্পিউটার ক্রয়ের জন্য ভাতা দেওয়া হবে।
    
যোগ্যতার মানদণ্ড:

* স্নাতক ডিগ্রি থাকতে হবে।
* ন্যূনতম পাঁচ বছরের ফুল-টাইম কাজের অভিজ্ঞতা।
* মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কোন পূর্ব অভিজ্ঞতা নেই এমন।
* নেতৃত্বের গুণাবলী থাকতে হবে।
* নিজের কমিউনিটিতে জনসেবার একটি রেকর্ড।
 * ইংরেজি ভাষায় দক্ষতা থাকতে হবে। টোয়েফল এ নূন্যতম ৭১ পেতে হবে। 
* বৈধ পাসপোর্টধারী।
* প্রোগ্রাম শেষে দেশে ফিরতে ইচ্ছুক হতে হবে। 

আবেদন প্রক্রিয়া:

অনলাইনে আবেদন করা যাবে। আবেদন করতে ও বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন এখানে


x

সর্বশেষ সংবাদ