মার্কিন দূতাবাসে ঢাবি উপাচার্যের অবদানের স্বীকৃতি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
মার্কিন দূতাবাসে ঢাবি উপাচার্যের অবদানের স্বীকৃতি  © সংগৃহীত

নিজ বিশেষায়িত ক্ষেত্রে সফলতা অর্জন এর পাশাপাশি বিশেষ অবদানের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানকে বিশেষ স্বীকৃতি প্রদান করেছে ঢাকাস্থ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস।

ঢাকাস্থ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের ফুলব্রাইট প্রোগ্রামের ৭৫ বছর পূর্তি পালন করছে। এ উপলক্ষ্যে মার্কিন দূতাবাস চারজন বিশিষ্ট বাংলাদেশি ফুলব্রাইট অ্যালামনাইকে বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য অভিনন্দন জানিয়েছেন। এদের মধ্যে অন্যতম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। ঢাবি উপাচার্য ছাড়া স্বীকৃতিপ্রাপ্ত বাকি তিনজন বাংলাদেশি হলেন অর্থনীতিবিদ ও গণনীতি বিশ্লেষক দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য। জনপ্রিয় গায়ক, গীতিকার ও অভিনেতা তাহসান খান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) এর বর্তমান নির্বাহী পরিচালক অর্থনীতিবিদ ফাহমিদা খাতুন।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান ২০০২ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টন কলেজে ফুলব্রাইট স্কলার হিসেবে গবেষণাসহ বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন। বাংলাদেশের জাতীয় কারিক্যুলাম উন্নয়নসহ শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধির ক্ষেত্রে তাঁর অনন্য অবদানের কথা তুলে ধরে মার্কিন দূতাবাস বলেন, অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান তাঁর জ্ঞান, ধারণা ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে মানব সম্প্রদায়ের কল্যাণে বিশেষ ভূমিকা পালন করে আসছেন।

দূতাবাসের অফিসিয়াল ফেইসবুক পেইজে বাংলাদেশে অবস্থিত এবং বিশ্বের সকল ফুলব্রাইট অ্যালামনাই যারা তাদের জ্ঞান ও ধারণা বিনিময় এর মাধ্যমে মানব সম্প্রদায় এর কল্যাণে বিশেষ ভূমিকা রেখেছেন তাদের সকলকে অভিনন্দন জানানো হয়। ইউএস স্টুডেন্ট প্রোগ্রাম যুক্তরাষ্ট্রের স্নাতক কলেজের সিনিয়র শিক্ষার্থী, স্নাতক পর্যায়ের ছাত্র, তরুণ পেশাজীবী এবং শিল্পীদের বিদেশে অধ্যয়ন এবং গবেষণা করার জন্য এক শিক্ষাবর্ষ বিদেশে পড়াশোনা করতে ফেলোশিপ প্রদান করে। এছাড়া গ্র্যান্ট মেয়াদের আগে কিছু ‘জরুরি বিদেশি ভাষা’ অধ্যয়নের জন্য গ্র্যান্টিদের ‘ক্রিটিক্যাল ল্যাংগুয়েজ এনহ্যান্সমেন্ট অ্যাওয়ার্ডস’ দেওয়া হয়।


মন্তব্য

x