ফি দিতে ভোগান্তি, অটোমেশনের দাবি ইবি শিক্ষার্থীদের

ইবি
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়  © টিডিসি ফটো

আবাসিক হল বন্ধ রেখে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) বিভিন্ন বিভাগের স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শ্রেণির চূড়ান্ত পরীক্ষা শুরু হয়েছে। পরীক্ষার আগেই শিক্ষার্থীদের সকল ফি পরিশোধ করতে বলা হয়েছে। তাই পরীক্ষার ফি দিতে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে তাদের। তাই ফি প্রদানে অটোমেশনের দাবি জানায় শিক্ষার্থীরা।

জানা যায়, ফি দিতে শিক্ষার্থীরা ভীড় করছেন ব্যাংকে। একটি মাত্র ব্যাংক হওয়ায় সেখানে শিক্ষার্থীদের উপচে পড়া ভীড় লক্ষ্য করা গেছে। করোনায় স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়েই ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে টাকা জমা দিচ্ছেন তারা। তথ্য প্রযুক্তির যুগেও সেকেলে পদ্ধতি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীরা জানায়, পরীক্ষার আগে ফি দিতে এসে অনেক ভোগান্তিতে পড়তে হয়। দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে ফি দিতে হচ্ছে। করোনার সময়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রশাসন পরীক্ষার আয়োজন করলেও ব্যাংকে ফি জমা দিতে এসে উপচে পড়া ভীড় থাকা সত্বেও দীর্ঘ লাইনে ঘণ্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি মাত্র ব্যাংক হওয়ায় এই ভোগান্তিতে পড়ছেন তারা। একইসাথে মোবাইল ব্যাংকিং বা অনলাইনে টাকা পরিশোধের পদ্ধতি চালু করার দাবি জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

ল’ এন্ড ল্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শিক্ষার্থীদের রেদওয়ানুল ইসলাম বলেন, ‘প্রযুক্তির যুগে এসে ব্যাংকে লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে। ফরম ফিলাপের জন্য হাতে সময় কম। তাই করোনার মধ্যেই উপচে পড়া ভীড় ঠেলে স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়াতে হচ্ছে। অনলাইন ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে টাকা পরিশোধের পদ্ধতি চালু করলে এই ভোগান্তি থেকে রক্ষা পেতাম।’

বাংলা বিভাগের আবদুল আলিম বলেন, ফি প্রদানে অটো মেশনের দাবি জানাই। এটি চালু হলে শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি পোহাতে হবে না।

আইসিটি সেলের পরিচালক প্রফেসর ড. আহসান-উল-আম্বিয়া বলেন, ‘প্রযুক্তির যুগে উপচে পড়া ভীড় ঠেলে শিক্ষার্থীদের ফি প্রদান করতে হবে এটা মোটেই কাম্য নয়। ইতোমধ্যে অনেক বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রতিষ্ঠান পেমেন্ট সিস্টেম ইন্ট্রিগেশন করেছে। কর্তৃপক্ষের সদিচ্ছা থাকলেই ইবিতেও অটোমেশন পদ্ধতি চালু করা সম্ভব। এক্ষেত্রে বিভাগ, হল ও হিসাব শাখাকে অটোমেশনের আওতায় আনতে হবে।’


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ