ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টকারীদের দ্রুত বিচার করতে হবে- ইশা ছাত্র আন্দোলন

ইশা ছাত্র আন্দোলন
ইশা ছাত্র আন্দোলন  © সংগৃহীত

ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টকারীদের দ্রুত বিচারের দাবি জানিয়েছে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন। 

মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) বিকেল ৪ টায় ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার উদ্যোগে ‘রংপুরে জেলে পল্লীতে অগ্নিসংযোগ, মন্দিরে হামলা ও ভাঙচুর, প্রতিবাদী জনতার উপর নির্বিচারে গুলি এবং পরিকল্পিতভাবে পবিত্র কুরআনের অবমাননা ঘটিয়ে ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টকারীদের দ্রুত বিচারের’ দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তারা এ দাবি জানান। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইশা ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এম এম শোয়াইব বলেন, ব্রিটিশরা আগমনের পূর্বে এদেশে সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষের মাঝে ধর্মীয় সম্প্রীতি বজায় ছিল। তারাই শোষণেরর লক্ষ্যে ধর্মীয় বিভাজন সৃষ্টি করে ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টের বীজ বপন করে। এর জের ধরেই এখন পর্যন্ত এই উপমহাদেশে সময়ে সময়ে দাঙ্গা ও বিশৃঙ্খলা মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। তবে এর সবগুলোতেই ধর্ম নয়, রাজনৈতিক হিসেব নিকেশ মুখ্য কারণ হয়ে থাকে বলেই আমরা দেখে আসছি।

ক্ষমতাসীনদের পৃষ্টপোষকতায় এমন সহিংসতার ঘটনা ঘটতে পারে মন্তব্য করে তিনি আরও বলেন, ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টকারী শক্তিকে বাংলাদেশে ঠাঁই দেয়া হবে না।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় সম্পাদক এম এ হাসিব গোলদার বলেন, হাজার বছর ধরে আমরা বাংলাদেশে সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষ একসাথে বসবাস করে আসছি, যা ধর্মীয় সম্প্রীতির অনন্য দৃষ্টান্ত। সাম্প্রতিক কালে এই ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টের অপচেষ্টা ইসলাম বিধৌত বাঙালি সংস্কৃতি বিরোধী।ৎ

মন্দিরে ভাঙচুর, জনতার উপর গুলি বর্ষণ, রংপুরে জেলে পল্লীতে অগ্নিসংযোগসহ এহেন ঘৃণ্য কর্মকান্ডের তীব্র নিন্দা জানিয়ে তিনি আরও বলেন, এদেশের ছাত্র সমাজ ইসলাম, দেশ ও মানবতা নিয়ে যে কোন চক্রান্ত রুখে দিতে বদ্ধপরিকর।

সভাপতির বক্তব্যে ইয়াসিন আরাফাত বলেন,  রামুর বৌদ্ধ মন্দির, নাসির নগর, শাল্লার ঘটনা বর্তমান সরকারের আমলেই সংঘটিত হয়েছে। কিন্তু, ন্যাক্কারজনক এ সকল ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে বিচার নিশ্চিত করা হয়নি বলেই আজকে আবার একই ঘটনা দেখতে হচ্ছে। তিনি এ সকল ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করে দ্রুত বিচারের দাবি জানান।


মন্তব্য

x