প্রাথমিকের আরেক ছাত্রী করোনা আক্রান্ত, শ্রেণিতে পাঠদান বন্ধ

করোনা
করোনা আক্রান্ত প্রাথমিকের আরেক শিক্ষার্থী  © প্রতীকি ছবি

গোপালগঞ্জে আরও এক স্কুলে শিক্ষার্থীর শরীরে করোনা শনাক্ত হওয়ায় ওই শ্রেণির পাঠদান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। স্বাভাবিকভাবে চলছে বাকি শ্রেণির পাঠদান। করোনা শনাক্ত হওয়া মোনালিসা ইসলাম গোপালগঞ্জ পৌরসভার ১০২ নম্বর বীণাপাণি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী। তার বাড়ি পৌরসভার শিশুবন এলাকায়।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক পারভীন আক্তার পাঠদান বন্ধের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মোনালিসার মা মিতু খানম বলেন, ‘এতদিন আমার মেয়ে সুস্থ ছিল। ১২ সেপ্টেম্বর থেকে সে স্কুলে যাওয়া শুরু করে। এরপর ১৪ তারিখ থেকে তার হালকা জ্বর, মাথাব্যথা। সে জন্য পরদিন তার স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিই। এক সপ্তাহেও মেয়ের জ্বর না কমায় ২১ সেপ্টেম্বর তার করোনা পরীক্ষা করাই। ওই দিনই পজিটিভ রেজাল্ট আসে। এরপর গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ভর্তি করেছি।’

জেলা সিভিল সার্জন সুজাত আহমেদ জানান, দুই দিন তাকে অক্সিজেন দিতে হয়েছে। এখন সুস্থ আছে। তাকে করোনার চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। ওই শিক্ষার্থীর পরিবারের আর কারো করোনা ধরা পড়েনি।

আরও পড়ুনঃ দাখিল পরীক্ষা শুরু ১৪ নভেম্বর, শেষ ২১ নভেম্বর

প্রধান শিক্ষক পারভীন আক্তার বলেন, ‘মোনালিসা সবশেষ ১৪ সেপ্টেম্বর ক্লাস করেছে। তার করোনার উপসর্গ দেখা দেয়ায় পরিবার থেকে স্কুলে আসা বন্ধ করে দিয়েছিল। আমরা তার পরিবারের সঙ্গে সব সময় যোগাযোগ রাখছি।

‘স্থানীয় প্রশাসনের নির্দেশে সে যে কক্ষে ক্লাস করেছিল, ২১ সেপ্টেম্বরই ওই কক্ষে তালা দিয়ে দেয়া হয়েছে। ১৪ দিনের জন্য ক্লাস বন্ধ আছে। বাকি সব শ্রেণির ক্লাস স্বাভাবিকভাবেই চলছে। আর কোনো শিক্ষার্থীর মধ্যে করোনার উপসর্গ দেখা যায়নি।’

প্রত্যেক শিক্ষার্থীর তাপমাত্রা মেপে শ্রেণিকক্ষে ঢোকানো হচ্ছে বলে জানান এই শিক্ষক।

এর আগে ১৭ সেপ্টেম্বর গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ার ৪ নম্বর ফেরধারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীর করোনা শনাক্ত হওয়ায় ওই শ্রেণির পাঠদান ১৪ দিনের জন্য বন্ধ করে দেয়া হয়।

 


মন্তব্য