সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড়

কেন সবাই বিয়ে করে, কাগজে সইয়ের দরকার কী?—মালালার প্রশ্ন

নোবেল জয়ী
ভোগের প্রচ্ছদে মালালা ইউসুফজাই  © ফাইল ফটো

পাকিস্তানের উজ্জ্বল নক্ষত্র মালালা ইউসুফজাই। যিনি সবচেয়ে কম বয়সী শান্তিতে নোবেল পুরস্কারজয়ী। মাত্র ১৪ বছর বয়সে তিনি তালেবানদের হাতে গুলিবিদ্ধ হন। এভাবে নানা সময়ে তিনি তার মেধা, মনন ও শ্রম দিয়ে বিশ্বের মানুষের কাছে প্রসংশা কুড়িয়েছেন। কিন্তু সেই মালালাকেও এবার পড়তে হলো সমালোচনার মুখে। 

সম্প্রতি ফ্যাশন ও লাইফস্টাইল বিষয়ক বিখ্যাত ‘ভোগ’ পত্রিকার জুন সংখ্যায় তাকে  প্রচ্ছদে স্থান দেওয়ায় একটি সাক্ষাৎকারও প্রকাশিত হয়। সেই সাক্ষাৎকারে দেয়া বিয়ে বা জীবন সঙ্গীর বিষয়ে করা একতি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে মুসলিমসহ অনেকের ক্ষোভ ও সমালোচনার মুখে পড়েছেন তিনি। 

বিয়ে প্রসঙ্গে ঠিক কী বলেছিলেন মালালা? 

২৩ বছরের এই তরুণী বিয়ে প্রসঙ্গে একটি প্রশ্নের উত্তরে বলেন, 'আপনি জানেন আপনি সম্পর্ক নিয়ে চিন্তা করছেন। সোশ্যাল মিডিয়াতে, প্রত্যেকে তাদের সম্পর্কের গল্প ভাগ করে নিচ্ছে এবং সেটা দেখে আপনি চিন্তিত হয়ে পড়েছেন। আপনি কীভাবে সম্পন্ন নিশ্চিত হয়ে কারো উপর নির্ভর করতে পারেন ?

তিনি আরও বলেন, আমি একটা ব্যাপার বুঝতে পারি না, কেন সবাই বিয়ে করে? জীবনসঙ্গীকে বেছে নিতে হলে, কাগজে সই করার দরকার কী? এটা একটা পার্টনারশিপও তো হতে পারে।’ 

তার ওই সাক্ষাৎকার নিয়েই নেট দুনিয়া সরগম। সাক্ষাৎকারে বিয়ে প্রসঙ্গে মালালা যা বলেছেন, তা নিয়ে নানা প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে। এমনকি, কেউ কেউ সেই মতকে ‘ইসলামবিরোধী’ বলেও মন্তব্য করেছেন।  

মালালার বিয়ে নিয়ে এমন মন্তব্য লিভইন সম্পর্ককে সমর্থন করে বলে অভিযোগ করে  ইসলামী আলেম মুফতি শাহাবুদ্দিন পোপালজাই মালালার বাবার ব্যাখ্যা জানতে চেয়েছেন।

পড়ুনঃ এবার ব্রিটিশ ভোগ ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদকন্যা মালালা

মালালা এখনও এই সমালোচনায় কোনো সাড়া দেননি। তবে তার বাবা জিয়াউদ্দিন ইউসুফজাই বলেছেন, তার মেয়ের বক্তব্যকে প্রসঙ্গের বাইরে নিয়ে মিডিয়া টুইট করেছে।

ওই সাক্ষাৎকারে আরও অনেক বিষয় নিয়েই খোলা মনে নিজের মনের কথা জানিয়েছেন মালালা। এর মধ্যে রয়েছে হিজাব পরার প্রসঙ্গও। যে বিষয়ে মালালা বলেন, ‘এটা আমাদের সংস্কৃতিক প্রতীক। এই পোশাক বুঝিয়ে দেয়, আমি কোথা থেকে এসেছি। আমরা মুসলিম মেয়েরা, পাকিস্তানি মেয়েরা কিংবা পাখতুনের মেয়েরা এটাকে আমাদের পরম্পরা বলেই মানি। 


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ