মুসলিম হওয়ায় মন্ত্রিত্ব হারানোর অভিযোগ

ব্রিটিশ
নারী আইনপ্রণেতা নুসরাত গনি  © সংগৃহীত

যুক্তরাজ্যে এক নারী আইনপ্রণেতা অভিযোগ করেছেন, শুধুমাত্র মুসলিম হওয়ার কারণে তার মন্ত্রিত্ব কেড়ে নিয়েছে বরিস জনসনের নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন সরকার। বৃটেনের পরিবহন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে নিয়োগ করা হয়েছিল নুসরাত গণিকে। তিনিই দেশটিতে প্রথম কোনো মুসলিম নারী মন্ত্রীর পদে আসীন হয়েছিলেন।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি অনলাইন এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে।

মন্ত্রিত্ব হারানো ব্রিটেনের মুসলিম ওই নারী আইনপ্রণেতার নাম নুসরাত গনি। ৪৯ বছর বয়সী এই আইনপ্রণেতা যুক্তরাজ্যের জুনিয়র পরিবহন মন্ত্রী ছিলেন এবং ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তাকে মন্ত্রিত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনে চাকরির, আবেদন ফি ১১২

বিবিসি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মন্ত্রিত্ব হারানোর পর ব্রিটিশ পার্লামেন্টের হুইপ তাকে জানিয়েছিলেন যে, তার মুসলিম পরিচয়ই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব থেকে তাকে সরিয়ে দেওয়ার পেছনে নিয়ামক হিসেবে কাজ করেছে।

এদিকে নুসরাত গনির এই অভিযোগের পর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের ডাউনিং স্ট্রিটের দপ্তর থেকে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি। কিন্তু, ব্রিটিশ সরকারের চিফ হুইপ মার্ক স্পেন্সার জানিয়েছেন, নুসরাত গনি তার সম্মানহানি করার জন্যই এই অভিযোগ এনেছেন। তার বিরুদ্ধেই এই অভিযোগ।

আরও পড়ুন: ডাবল মাস্ক পরে শিক্ষামন্ত্রীকে শাবিপ্রবিতে যেতে সাংসদের পরামর্শ

লকডাউনে মদ-পার্টির আয়োজন নিয়ে সৃষ্ট বিতর্কের কারণে ব্যক্তিগত ভাবে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের এবং তার দলের জনসমর্থন কমে গেছে। কার্যত প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর বর্তমানে সবচেয়ে কঠিন সময় পার করছেন জনসন। বিষয়টি নিয়ে এক আইনপ্রণেতা পুলিশের কাছে যাওয়ার কথা বলার একদিন পর নুসরাত গনির এই অভিযোগ সামনে এলো।

ব্রিটেনের ইতিহাসে প্রথম মুসলিম নারী মন্ত্রী ছিলেন নুসরাত গনি। তিনি জানান, ‘ডাউনিং স্ট্রিটের এক রদবদল সভায় আমার মুসলিম হওয়ার বিষয়টি উত্থাপন করা হয় এবং সেখানে একজন মুসলিম নারী মন্ত্রী হবে এটা নাকি সহকর্মীদের মধ্যে অস্বস্তি সৃষ্টি করেছিল’।

তিনি আরও বলেন, ‘আমি এটি বলবো না যে, এটি (মন্ত্রিত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া) দলের প্রতি আমার বিশ্বাসকে নাড়া দেয়নি। এমনকি দলের এমন আচরণে আমি এমপি হিসেবে আমার দায়িত্ব চালিয়ে যাবো কি না সেটিও একসময় বিবেচনা করতে বাধ্য হই।’

 


x

সর্বশেষ সংবাদ