শিক্ষকদের প্রভোস্ট ও টিউটর থাকা উচিত না: ঢাবি অধ্যাপক

মতামত
অধ্যাপক কামরুল হাসান মামুন  © সংগৃহীত

প্রাধ্যক্ষ ও হাউস টিউটর পদগুলোতে শিক্ষকদের থাকা উচিত নয় বলে মন্তব্য করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক কামরুল হাসান মামুন। মঙ্গবার (১৮ জানুয়ারি) তার ভেরিফাইড ফেসবুক একাউন্ট থেকে দেয়া স্ট্যাটাস থেকে এসব তথ্য জানা যায়।

তিনি ওই পোস্টে লিখেন, প্রভোস্ট এবং হাউস টিউটর পদগুলোতে শিক্ষকদের থাকা একদম উচিত না। একদম না। আবাসিক হল চালানো মানে একটি হোটেল চালানোর মত কাজ। এই কাজ করতে শিক্ষকদের নিয়োগ দেওয়া একদম উচিত না। এইগুলো ফুল টাইম জব হওয়া উচিত এবং এইসব পদে প্রফেশনালদের নিয়োগ দেওয়া উচিত। আর বাংলাদেশের পার্স্পেক্টিভে আরো না। এইসব পদে শিক্ষকদের নিয়োগ দেওয়ার মাধ্যমে ছাত্র-শিক্ষক সম্পর্ককে মুখোমুখি করে দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে করোনায় আক্রান্ত শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়ছে

হলের ছাত্রনেতাদের অন্যায় আবদার মেনে নিতে বাধ্য করা হয়। অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক সমস্যার সূত্রপাত হয় আবাসিক হল থেকে। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান সমস্যার সূত্রপাতও হয় ছাত্রীদের আবাসিক হল থেকে।

আমি নিজে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি হলের আবাসিক শিক্ষক থেকে মর্মে মর্মে বুঝেছি এইটা শিক্ষকদের কাজ না। হলের চতুর্থ শ্রেণীর এক কর্মচারী তার এক সহকর্মীর স্ত্রীকে ভাগিয়ে নিয়ে গেছে সেইটার তদন্তও আমাকে করতে হয়েছিল। কোন ছাত্র মোবাইল চুরি করল, কোন ছাত্র কাকে মারল ইত্যাদির জন্যও তদন্ত কমিটির হয়ে কাজ করতে হয়েছে।

55555

বিভিন্ন রকম বিশেষ দিনে বিশেষ খাওয়ার ব্যবস্থা করলে ছাত্রনেতাদের বিশেষ অন্যায় দাবি মানতে হয়। হলের খেলার সরঞ্জাম কিনতে গেলেও ছাত্রনেতাদের বিশেষ অন্যায় দাবি মানতে হয়। সরকারি ছাত্রনেতাদের অন্যান্য দলের ছাত্রনেতাদের চেয়ে বিশেষভাবে বিশেষ ভালো দৃষ্টিতে দেখতে হয়। তাদের অনেক অন্যায় আবদার, আচরণ দেখেও না দেখার ভান করতে হয়। পৃথিবীর অন্য কোন দেশে এইসব সমস্যা নাই। এইসব বাড়তি সমস্যার কারণে প্রভোস্ট ও আবাসিক শিক্ষকদের অনেক উপরি কাজ করতে হয়।

ইউরোপ, আমেরিকা, চীন, জাপান বা দক্ষিণ কোরিয়ার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম বলুনতো যেখানে শিক্ষকরা আবাসিক হলের সিট্ বন্টন থেকে শুরু করে তাদের প্রাত্যহিক খাওয়া দাওয়া ও দাপ্তরিক কাজ করতে হয়? এইসব প্রশাসনিক ও ক্লারিক্যাল কাজ। এইসব কাজের জন্য ভালো ছাত্র, পিএইচডি, পোস্ট-ডক ইত্যাদি লাগে না। বরং ভালো ছাত্র, পিএইচডি, পোস্ট-ডক ওয়ালা মানুষগুলোকে এইসব দায়িত্ব দিলে তাদের দ্বারা শিক্ষকতা, গবেষণা করা ইত্যাদি কাজ হবে না।

পৃথিবীর অন্যান্য দেশে এক সময় হয়ত এইসব দায়িত্ব শিক্ষকদের দেওয়া হয়েছিল। সময়ের পরিক্রমায় বিবর্তিত হয়ে এখন পরিষ্কার হয়ে গেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কাজ। সময়ের পরিক্রমায় বিবর্তিত হয়ে এখন পরিষ্কার হয়ে গেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কাছ থেকে কি কি আশা করা উচিত। শিক্ষকদের যদি হোটেল চালাতে দেই, কে কোন রুমে থাকবে এইসব নির্ধারণের জন্য দায়িত্ব দেই, হল পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার দায়িত্ব দেই, ছাত্রদের খাওয়ার দায়িত্ব দেই তাহলে সেই শিক্ষকদের কাছ থেকে কিভাবে ভালো শিক্ষকতা, ভালো গবেষণা আশা করব?

দিন বদলাইছে। আমাদেরকেও বদলাইতে হবে। ছাত্ররা যদি সভ্য হয়, ছাত্ররা যদি ছাত্রদের রাজনীতি করে এবং তাদের জাতীয় রাজনীতি থেকে মুক্তি দিতে পারি তাহলে প্রফেশনালদের নিয়োগ দিয়ে তাদের মাধ্যমে হল চালানো যেতে পারে। তবে উপর থেকে সুপারভাইস করার জন্য এবং দিক নির্দেশনা দেওয়ার জন্য একটা উপদেষ্টা কমিটি থাকতে পারে। কিন্তু শিক্ষকদেরকে দিয়ে হোটেল চালানোর দায়িত্ব দেওয়া উচিত না। এর মাধ্যমে ছাত্র শিক্ষকদের মাঝে সম্পর্ক নষ্ট হয়।

মনে রাখতে হবে শ্রেণীকক্ষে পড়ানোর সময় শিক্ষক থেকে ছাত্রের মাঝে জ্ঞানের প্রবাহ উঁচু থেকে নিচে পানির প্রবাহের মত। পানির নিরবিচ্ছিন্ন প্রবাহের জন্য যেমন উচ্চতার ঢাল লাগে তেমনি জ্ঞানের প্রবাহ নিরবিচ্ছিন্ন করার জন্য সম্মানের ঢাল লাগে। ছাত্র শিক্ষকদের মাঝে কনফ্লিক্ট তৈরী হয় এমন কিছু করা থেকে আমাদের বিরত থাকা উচিত।

আরও পড়ুন: ভিসি অপসারণে ৪৮ ঘণ্টার সময় বেধে দেবে শিক্ষার্থীরা

আর শিক্ষকরা অন্য কোন গ্রহ থেকে আসেনি যে তারা হলের বাজার করবে, খেলাধুলা চালাবে, সিট্ বন্টন করবে, পুলিশগিরি করবে। এত কাজের পটু হওয়া কিভাবে সম্ভব? সাধারণত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা হয় ভালো ছাত্র। ভালো ছাত্ররা এমনিতেই একটু গো-বেচারা টাইপের সাতেপাঁচে না থাকা মানুষ। আশা করি কর্তৃপক্ষ আমার এই কথাগুলো বোঝার চেষ্টা করবে।


x

সর্বশেষ সংবাদ