মাদ্রাসাছাত্রকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ শিক্ষকের বিরুদ্ধে

হত্যা
প্রতীকী ছবি  © ছবি

নড়াইলের লোহাগড়ায় মাদ্রাসার এক ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে শিক্ষকের বিরুদ্ধে। সোমবার (২৪ জানুয়ারি) উপজেলার শামনগর ইউনিয়নের একটি এতিমখানা হাফিজিয়া মাদ্রাসায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ওই দিন ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে পাঠান।

লোহাগড়া থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) শেখ আবু হেনা মিলন এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন

নিহত আরিফ বিল্লাহ (৯) উপজেলার ইতনা ইউনিয়নের লংকারচর গ্রামের নূর ইসলামের ছেলে। আর অভিযুক্ত শিক্ষকের নাম হাফেজ আব্দুল্লাহ। তিনি উপজেলার শালনগর ইউনিয়নের মণ্ডলবাগ আকতার হোসেন এতিমখানা ও রহমানিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক।

আরও পড়ুন: প্রভোস্ট পদত্যাগের আন্দোলন যেভাবে ভিসি বিরোধী আন্দোলনে রূপ নিলো

নিহতে এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, আরিফ বিল্লাহকে ওই মাদ্রাসার হাফেজি শাখায় ৯ মাস আগে ভর্তি করা হয়। কিছুদিন আগে মাদ্রাসার এক ছাত্রের ২০০ টাকা চুরি হয়। বিষয়টি সে শিক্ষকদের জানায়। গত সোমবার (২৪ জানুয়ারি) শিক্ষক আব্দুল্লাহ রাত ১১টার দিকে সব ছাত্রকে ঘুম থেকে ডেকে তুলে মেঝেতে বসিয়ে লাঠি দিয়ে পিটাতে থাকেন। এ সময় আরিফ বিল্লাহ গুরুতর আহত হয়। সে অসুস্থ থাকায় কয়েকদিন লজিং বাড়িতে না গিয়ে মাদ্রাসায় শুয়ে থাকে।

পরে শুক্রবার সকালে ওই গ্রামের লজিং বাড়ির মালিক হাফিজারের স্ত্রী মাদ্রাসায় গিয়ে আরিফকে অসুস্থ দেখে বাড়িতে নিয়ে আসেন এবং বিষয়টি তার মা-বাবাকে জানান। সন্ধ্যায় তাকে লজিং বাড়ি থেকে ফুপু রুনা খানম লাহুড়িয়ায় নিজ বাড়িতে নিয়ে স্থানীয় কবিরাজের মাধ্যমে চিকিৎসা দেন। সেখানে রোববার (২৩ জানুয়াবি) রাত ৮টার দিকে আরিফ মারা যায়। তার বাবা নূর ইসলাম অভিযুক্ত শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন।

লোহাগড়া থানার ওসি শেখ আবু হেনা মিলন বলেন, রোববার রাতে আরিফের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। তবে শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি।


x

সর্বশেষ সংবাদ